এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম অক্সফোর্ড মিশন চার্চ ভ্রমন

অক্সফোর্ড মিশন চার্চ এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং বাংলাদেশের শৈল্পিক গির্জাগুলোর অন্যতম স্থাপত্য নিদর্শন। বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভাগীয় শহর বরিশালের বগুড়া রোডে অবস্থিত সুরম্য প্রাচীন স্থাপনা যা ১১৬ বছরের পুরাতন।

গ্রিক স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত আকর্ষণীয় গির্জাটির ভেতরে আছে সুবিশাল প্রার্থনা কক্ষ। এর চারপাশ পাম গাছ ঘেরা, গাছের ফাঁক দিয়ে তাকালেই দেখা যাবে টেরাকোটা রঙের সুউচ্চ আর্চওয়ে চার্চ। ছাদ কাঠের তৈরি, আর ফ্লোরে সুদৃশ্য মার্বেলের টাইলস। এই চার্চের সবচেয়ে বড় বিশেষত্ব হলো এর আশ্চর্য নির্মাণ শৈলী।

কথিত আছে, কবি জীবনানন্দ দাশের সঙ্গে তাঁর প্রথম প্রেমিকা মনিয়ার দেখা হয় বরিশালের অক্সফোর্ড মিশনের গির্জায়। মনিয়ার মা এই গির্জায় সেবিকার কাজ করতেন। এছাড়াও ছাত্রাবস্থায় অক্সফোর্ড মিশনের ছাত্রাবাসে থাকতেন তিনি। শতবর্ষী এই গির্জাটির সঙ্গে জীবনানন্দের কতটা সখ্য ছিল, তাঁর প্রথম প্রেমিকা মনিয়ার সঙ্গে আদৌ কি দেখা হয়েছিল এখানে? এসব প্রশ্নে নিয়ে কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে এই উপাসনালয়টি।

“অথবা নাইকো ধান ক্ষেতে আর;
ব্যস্ততা নাই আর,
হাঁসের নীড়ের থেকে খড়
পাখির নীড় থেকে খড়
ছড়াতেছে; মনিয়ার ঘরে রাত, শীত আর শিশিরের জল।
জীবন গিয়েছে চলে আমাদের কুড়ি কুড়ি বছরের পার―
তখন হঠাৎ যদি মেঠো পথে পাই আমি তোমারে আবার!”

সাধারনের জন্য প্রবেশ নিষিদ্ধ হলেও বিশেষ অনুমতি সাপেক্ষে এখানে প্রবেশ করা যায়।

বাসে বা সড়ক পথেঃ
সড়কপথে ঢাকা থেকে বরিশাল আপনি ৬ থেকে ৮ ঘণ্টায় পৌঁছে যাবেন। প্রতিদিন ভোর ৬ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত গাবতলি বাস টার্মিনাল থেকে বেশকিছু বাস বরিশালের উদ্দেশে ছেড়ে যায়। বেশীরভাগ বাস পাটুরিয়া ঘাট অতিক্রম করে বরিশালে যায় আবার কিছু কিছু বাস মাওয়া ঘাট অতিক্রম করে বরিশালে যায়। ঢাকা থেকে আগত বাসগুলো বরিশালের নতুল্লাবাদ বাস স্ট্যান্ডে থেমে থাকে। নতুল্লাবাদ থেকে রিকশা বা অটোতে করে বগুড়া রোডের চার্চে সহজেই পৌছে যাওয়া যায়।

Source:  আরিফুল ইসলাম রনি‎<Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares