চায়ের দেশ অথবা চায়ের রাজধানী শ্রীমঙ্গল..

শ্রীমঙ্গল নাম শুনলেই যেন মনের মধ্যে চা বাগানের ছবি ফুটে উঠে। আর সেই চা বাগান গুলোতে এখন যেন চলছে পূর্ন যৌবন,বৃষ্টিজল চা গাছের পাতায় পরা মানেই তাদের সবুজ আভার উৎকর্ষতা বৃদ্ধি…

শ্রীমঙ্গল আসলেই এখন আপনার চোখ জুড়িয়ে মনেও বয়ে চলবে অবারিত প্রশান্তি ধারা,চারিদিকে যেদিকেই চোখ পরবে সবুজ আর সবুজ…যেন বাঁধভাঙ্গা কোনো সবুজের দেশ যেখানে হুটহাট নেমে পরা বৃষ্টি আপনাকে নিয়ে যাবে হারিয়ে যাওয়া কোনো স্মৃতির পৃষ্ঠায়।

তো আর দেরী কেন ?

এই বৃষ্টির দিনগুলোতে প্রিয়জন/প্রিয়জনদের কে নিয়ে বৃষ্টি বিলাস করতে অথবা একদিনের শর্ট ট্যুরে ঘুরে যেতে পারেন চিরসবুজ শ্রীমঙ্গল।

শ্রীমঙ্গল নিজেই একটা সৌন্দর্য, A Complete Package of Beauty… তবুও এখানে এসে আরো যা যা দেখতে পারবেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্যঃ
১.চা বাগান
২.লাউয়্যাছড়া উদ্যান
৩.খীতেশ বাবুর চিড়িয়াখানা(বন্যপ্রাণী অভয়াশ্রম)
৪.বার্ডপার্ক(কালীঘাট রোড)
৫.বদ্ধভুমি
৬.নীল কন্ঠ চা কেবিন
৭.গ্রান্ড সুলতান টি রিসোর্ট
৮.মাধবপুর লেক(কমলগঞ্জ)
৯.বীরশ্রেষ্ঠ হামীদুর রহমান এর মাজার(কমলগঞ্জ)

আর যদি কেউ দুই দিনের প্ল্যান অথবা অন্য কিছু বাদ দিয়ে এডভেঞ্চার এর নেশায় যেতে চান তাহলে তার জন্য পাহাড়ি সুন্দরী হামহাম…

শ্রীমঙ্গল এ খাবারের জন্য ভালো মানের রেস্টুরেন্ট আছে কয়েকটা এর মধ্যে পানসী সবার থেকে এগিয়ে, পাচ ভাই,কুটুমবাড়ি, শশুড়বাড়ি,সুলতান,আগ্রা অন্যতম।

যাতায়াতঃঢাকা থেকে প্রতিদিন আন্তঃনগর ৪টা ট্রেন শ্রীমঙ্গল আসে ভারা ২০০ থেকে শুরু,বাসে সায়েদাবাদ থেকে হানিফ, শ্যামলী, রুপসী বাংলা ৩৮০ টাকা ভারা,এছারা লোকাল রুপসী বাংলা এবং তাজ ভারা ২৫০ টাকা।
মহাখালী থেকে এনা পরিবহন এর এসি/নন এসি বাস পাওয়া যায়।

থাকার জন্য অনেক রিসোর্ট এবং হোটেল পাবেন বাজেট অনুযায়ী।
রিসোর্টঃগ্র‍্যান্ড সুলতান, বিটিআরআই টি রিসোর্ট, নিসর্গ,হীড বাংলাদেশ,গ্রীন লীফ,লেমন গার্ডেন,নভেম ইকো রিসোর্ট
হোটেলঃ মহসীন প্লাজা,স্কাইপার্ক,টি টাউন অন্যতম

Post Copied From:JeWel RaNa‎>Travelers of Bangladesh (ToB

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com