দেশে থেকেই দেখে আসুন থাইল্যান্ডের ফ্লোটিং মার্কেট

যারা থাইল্যান্ডের ফ্লোটিং মার্কেট নিয়ে আগ্রহ দেখান, যারা কেরালার ব্যাকওয়াটার এর ছবি নিয়ে হা পিত্যেস করেন তারা দেখে আসুন বরিশাল আর পিরোজপুরের জলের এক স্বর্গ রাজ্য। গ্যারান্টি দিচ্ছি ভুলে যাবেন জীবনের সব আক্ষেপ, গর্ব ভরে যাবে বুক দেশে এমন সুন্দর একটি জায়গা আছে বলে।

বলছিলাম বরিশাল- পিরোজপুরের নদী আর গ্রামের ভেতর বয়ে যাওয়া খালগুলোর কথা। ধান- নদী- খাল এই তিনে বরিশাল- একথাতো অনেকেই জানে। কিন্তু অনেকেই জানিনা এ নদী-খালের মধ্যে কি অপরিসীম স্বর্গীয় সৌন্দর্য লুকিয়ে আছে। বরিশালে প্রতি এলাকায়ই একটি নদী নিদেন পক্ষে একটি খাল রয়েছে। ভরা বর্ষায়তো বটেই, শীতকালেও এসব খালে পানি প্রবাহ থাকে। তাই বছর ভর ঘুরে বেড়ানো যায় শান্ত স্নিগ্ধ এ এলাকায়। ছোট খালের দুপাশে কোথাও ফসলের মাঠ, কোথাও পতিত ভুমি কোথাও বা বসতবাড়ি- সব কিছুই ছবির মতো মনে হবে আপনার কাছে। কিচুক্ষন পর পর আছে গ্রামীন ছোট বাজার। আর সে বাজারের আছে টাটকা সব শাক সবজি। দুপুরে খেতে চাইলে আছে তারও ব্যবস্থা।

সবচে আকর্ষনীয় যে জিনিষটি আপনার মন কেড়ে নেবে তা হল ফ্লোটিং মার্কেট বা ভাসমান বাজার। পানিপ্রধান অঞ্চল বলে স্বভাবতই এখানকার জীবনযাত্রায় নৌকার ভুবিকা প্রবল। কতোটা প্রবল তা এখানে না এলে বোঝা যাবেনা। এ এলাকার অধিবাসীদের ব্যবসা বাণিজ্যের বেশ বড় অংশ চলে জলে বসে। আর এ কারনেই বরিশাল আর পিরোজপুরে গড়ে উঠেছে অনেকগুলো ভাসমান বাজার। বরিশালের বানারীপাড়ার সন্ধ্যা নদীতে প্রতি শনি এবং মঙ্গলবার বসে বিশাল ধান আর চালের ভাসমান বাজার। খুব সকাল থেকেই কয়েকশ নৌকায় করে কারবারি এবং গৃহস্থরা ধান চাল নিয়ে আসে বিক্রির জন্য। অনেকে আসেন খালি নৌকা নিয়ে চাল কিনতে। পুরো প্রক্রিয়াটাই চলে নদীতে বসে।

ধানের বাজার ছাড়াও আছে ভাসমান সবজি বাজার। বানারীপাড়া, নাজির পুর এর বৈঠাকাঠা, উজিরপুর এর হারতা, মাহমুদকাঠি সহ বেশ কটি জায়গায় আছে এ সবজি বাজার। এখানেও স্থানীয় মানুষজন তাদের শাক সবজি নৌকায় করে নিয়ে এসে নৌকায় করেই বিক্রি করে থাকেন। সকাল থেকেই জমে ওঠে এ বাজার। স্থানীভাবে উৎপাদিত লাল শাক, পালং শাক, পুই শাক, কলা, চিচিংগা, বরবটি, শশা, টমেটো, মুলা ইত্যাদি নানান সবজি দিয়ে ভরপুর থাকে এসব নৌকায়। অসাধারন ফটোজেনিক জায়গা এটি্ বলা যায় ফটোগ্রাফারদের স্বর্গরাজ্য। শান্ত জলের মাঝে সবজি বোঝাই নৌকাগুলোতে বেচা কেনা চলে হরদম।

আর আপনি যদি যান জুলাই থেকে অক্টোবরের এর মাঝে তবে দেখা পাবেন অপার্থিব এক সুন্দর বাজারের। সেটা হল আটঘর এর ভাসমান পেয়ারা বাজার। বাংলাদেশের উৎপাদিত মোট পেয়ারার প্রায় ৮০ ভাগই উৎপাদিত হয় ঝালকাঠির বিভিন্ন গ্রামে। আটঘর, কুরিয়ানা, ডুমুরিয়া, বেতরা, ডালুহার, সদর ইত্যাদি এলাকার প্রায় ২৪,০০০ একর জমিতে পেয়রার চাষ হয়।আর এ পেয়ারা বেচা কেনার জন্য স্বরুপকাঠির ভিমরুলিত জমে ওঠে বাংলাদেশের সবচে বড় ভাসমান বাজার। প্রতি মৌসুমে এ বাজারে প্রায় ৫০০ কোটি টাকার বেচাকেনা হয়। প্রতিদিন সকাল থৈকে দুপুর পর্যন্ত চলে কেনা বেচা। অনেক দুর দুরান্ত থেকে পেয়রা চাষীরা তাদের ক্ষেতের পেয়ারা নিয়ে আসেন এ বাজারে। আর ক্রেতারাও আসেন অনেক দুর থেকে। সাধারনত নৌকায় খাকা পুরো পেয়রাই এক লটে কেনা বেচা হয়। ভরা মৌসুমে এ নৌকা পেয়ারা মা্রত ৩০০ টাকায়ও কিন্তে পারবেন।

তো যদি স্রেফ ২ রাত ১ দিন সময় পান হাতে, দেখে আসুন দক্ষিন বাংলার অপার সে সৌন্দর্য, অনুভব করে আসুন বাংলার রুপ।

কি বারে কি বাজার :

– বানারীপাড়ার চালের বাজার : শনিবার এবং মঙ্গলবার
– উজিরপুরের হারতার সবজি বাজার : রবি এবং বুধবার
– নাজিরপুর এবৈঠাকাঠি সবজি বাজার : শনি এবং মঙ্গলবার
– ঝালকাঠির ভিমরুলির পেয়ারা বাজার : প্রতিদিন (জুলাই থেকে অক্টোবর)

বাজার দেখতে হলে উপরের এ দিন মিলিয়ে যাোয়াই ভালো। সবগুলো বাজারই খুব সকালে বসে এবং দুুপরের মদ্যে শেষ হয়ে যায় তাই সকালে যাওয়াই উত্তম। আর শুধু ক্যানেল দেখতে গেলে যে কোন দিনই যাোয়া যায়।

কি করে যাবেন: ঢাকার সদরঘাট থেকে প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭ টায় পিরোজপুরের বানারীপাড়ায় ২-৩ টি লঞ্চ ছেড়ে যায়। এতে উঠে পরদিন সকালে বানারীপাড়া নেমে যাবেন। ভাড়া নেবে ডেক ১৮০ টাকা, কেবিন : ১০০০ টাকা (সিংগেল) আর ডাবল ১৮০০ টাকা।

এছাড়া ঢাকার গাবতলি থেকে স্বরুপকাঠির উদ্দেশ্যে বাস ছেড়ে যায়। এতে উঠে বানারীপাড়া নেমে যাবেন। ভাড়া নেবে ৫০০ টাকা।

বরিশাল হয়েও যেতে পারেন। লঞ্চ এ করে বরিশাল গিয়ে বাসে বা অটোতে করে বানারীপাড়া।

কি করে ঘুরবেন : বানারীপাড়া পৌছাবেন সকাল ৬ টার মধ্য। এরপর যে কেন একটি রেষ্টুরেন্ট এ নাস্তা করে আবার নদী তীরে চলে আসুন। একটি বড় নৌকা ভাড়া করুন। বলবেন আপনি ৬-৭ ঘন্টা ঘুরবেন এভাবে : বানারীপাড়া, বৈঠাকাঠী, আটঘর-কুড়িয়ানা, ভিমরুলি ও মাহমুদকাঠি। ১০-১৫ জন বসার মত একটি ইঞ্জিন নৌকা ভাড়া নেবে ১৫০০ টাকার মত।

ফেরার সময় বানারীপাড়া থেকে বাসে করে চলে আসুন গুঠিয়া। গুঠিয়ার মিখ্যাত বায়তুল আমান মসজিদ দেখে অটো নিয়ে চলে যান দুর্গাসাগর। এরপর বাসে বরিশাল গিয়ে রাত ৮.৩০ এর লঞ্চ এ উঠে বসুন ঢাকার উদ্দেশ্যে।

Post Copied From:Asad Islam>Travelers of Bangladesh (ToB

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com