নাফাখুম এ্যাডবেঞ্চার

বান্দরবান থেকে নীলগিরি হয়ে থানচি- আলিকদম বাংলাদেশের সবচেয়ে উঁচু রাস্তা। যতদূর চোখ যায় চার পাশে পাহাড়ের সারি, আর মাঝখান দিয়ে মেঘে মোড়ানো রাস্তা দিয়ে চলবে গাড়ি। এ যেন অপার্থিব এক অনুভূতি। থানচি পৌছেতে একটু দেরি হয়ে গিয়েছিলো আমাদের। তাই তাড়াতাড়ি কিছু খেয়ে, লোকাল থানায় এ্যান্ট্রি করে রওনা দিলাম থানচি থেকে রেমাক্রির উদ্দেশ্যে।

ছোট নৌকা ৬/৮ নেয়ার মত, আমরা ছিলাম ৬ জন। আঁকা বাঁকা পাহাড়ি নদী সাঙ্গু অতুলনীয়। ১৫/ ২০ মিনিট পর চলে গেলাম নেটওয়ার্কের বাইরে। তখন সময় প্রায় ৪.৩০ হবে। দুপাশে ১০০০/ ১৫০০ ফিটের কালো পাথরের পাহাড়। নদী পথ আর পাহারের ট্রেকিং ছাড়া অন্য কোন পথ নেই।

একটু পর পেলাম তিন্দু আর বড় পাথর, একুটও দাঁড়াইনি কোথাও, অপরিচিত জায়গা এর উপর সন্ধ্যা হয়ে এসেছে। একটু ভয়ও করছে, সাথে ছিলো আমাদের গাইড জয় মারমা। হটাৎ কি এক শব্দ হলে নৌকা থেমে যায়, চারদিকে অন্ধকার, আমরা সবাই খুব ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। দুজন মাঝি নৌকা থেকে পানিতে নেমে কি যেন করছে, আর ওদের ভাষায় কিছু একটা বলছে। 📷 🙁 আমরা সবাই চুপ, গা হাত পা ঠান্ডা হয়ে গেছে, সাথে আাবার ৩ জন মেয়ে। ২/৩ মিনিট খুব শ্বাসরুদ্ধকর ছিলাম। এর গাইড কে জিগ্যেস করলাম জয়দা কি হয়েছে, দাদা বলল নৌকার ব্লেডটা পাথরে লেগে বাঁকা হয়ে গেছে ওটাই ঠিক করছে মাঝি। আমরা একটু নিশ্চিন্ত, তাও ভয়ে ভয়ে বসে আছি। ৪/৫ মিনিট পর ঠিক হলো, এরপর আরও ১৫/২০ মিনিট পর রেমাক্রি বাজারে পৌছলাম।

নৌকা ভাড়া ৪৫০০ টাকা ( যাওয়া-আশা) আমরা একদিন বশি থাকি তাই ৫০০ টাকা বাড়িয়ে দিয়েছিলাম। ওখানেই একটা ছোট কটেজে থাকার প্নেন। জন প্রতি ১৫০ টাকা প্রতি রাতের জন্য। খাওয়া দাওয়ার ব্যাবস্থাও আছে ওদের। আগে বলতে হবে কি খাবেন। আলু ভর্তা, ডিম, ডাল ৭০/৮০ টাকা, মুরগি দিয়ে ১৫০। খুব সুন্দর কাঠের দোতলা ৪ রুমের একটা কটেজ।

ভোরে রেমাক্রি খালের পাশ দিয়ে ২/২.৫ ঘন্টা হেঁটে গেলে দেখা মিলবে অদ্ভুত সুন্দর এই মায়াবতী নাফাখুম জলপ্রপাতের।

সব ক্লান্তি দূর হয়ে যায় এর নাফাখুমের সৌন্দর্যে। 📷<3

কলাবাগান থেকে বান্দরবান বাসে।

বান্দরবান শহর থেকে থানচি ২.৫/৩ ঘন্টার পথ। চান্দের গাড়ি বা লোকাল বাসও পাওয়া যায়। চান্দের গাড়ির ভাড়া ৩০০০/৪০০০ হাজার, লোকাল বাস জন প্রতি ২০০। এর পর থানচি থেকে নদী পথে ছোট নৌকায় ২/২.৫ ঘন্টায় রেমাক্রি বাজার। ওই বাজারে কটেজে রাত্রি জাপন করে পরদিন ভোরে রেমাক্রি খালের পাশ দিয়ে ২/২.৫ ঘন্টা হেঁটে গেলে দেখা মিলবে অদ্ভুত সুন্দর এই মায়াবতী নাফাখুম জলপ্রপাতের।

Source: তানিন ইসলাম‎>Travelers Of Bangladesh (TOB)

Share:

Leave a Comment

Shares