প্রায় ১০০ বছরের পুরোনো হার্ডিঞ্জ ব্রীজ

যমুনা ব্রীজের পর এটাই বাংলাদেশের সবচেয়ে দীর্ঘতম
ব্রীজ যমুনা ব্রীজের আগেই এটাই ছিল বাংলাদেশের
দীর্ঘতম সেতু।
এখানে ২ ভাবে যাওয়া যায় বাসে বা ট্রেনে বিভিন্ন রুট
দিয়ে এখানে যাওয়া সম্ভব তবে আমার যেটা সহজ মনে
হয়েছে তা হল খুলনা গামী ট্রেনে গেলে ঈশ্বরদী জংশন
নামতে হবে এবং উত্তর বংগের ট্রেনে গেলে ঈশ্বরদ্দী
বাইপাসে নেমে সেখান থেকে অটো বাইক বা রিক্সায়।
করে ঈশ্বরদী বাজারে এসে সেখান থেকে অটো বা রিক্সা যোগে পাকশী।
কিংবা ঢাকা থেকে সরাসরি বাসে করে ঈশ্বরদ্দী বাজারে সেখান থেকে পাকশী।
আমি “একতা এক্সপ্রেসে” করে ঈশ্বরদী বাইপাসে
নেমেছিলাম।
বলা বাহুল্য অনেকেই মনে করেন এটা কুষ্টিয়া জেলায়
অবস্থিত কিন্তু এটা হচ্ছে পাবনা জেলার ঈশ্বরদ্দী
উপজেলার পাকশী ইউনিয়নে অবস্থিত।
থাকার জন্য ঈশ্বরদী তে মাঝারী মানের হোটেল
রয়েছে সেখানে রাত্রিযাপন করতে পারেন।
এটা বাংলাদেশের ইতিহাস বিজরিত একটা স্থাপনা
১৯১২ সালে এর উদ্ভোদন হয় যার মানে এটার বয়স ১০৭ বছর।
এবং এটি বাংলাদেশ রেলওয়ের গুরুত্বপূর্ণ খুবই সেতু।
সুতরাং এর রক্ষনাবেক্ষন আমাদেরই দায়িত্ব এবং এর আসেপাশে কোন অপচনশীল বস্তু যেমন পলিথিন বা প্লাস্টিক এর বোতল না ফেলার অনুরোধ করছি।

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com