ফ্র্যাকমুন্টেগ চূড়া ও লুজার্ন শহরে একদিন

গতবছর এই সময়ে আমার সুইজারল্যান্ড যাওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিলো। যাওয়ার আগেই ঠিক করেছিলাম যে এই সুযোগে ইউরোপ ঘুরে দেখবো। আমরা ছিলাম তিনজন। আমি আর আমার দুই ইন্দোনেশিয়ান বন্ধু। জেনেভা শহরে ছিলাম দুই মাসের মত। একদিন ঠিক করলাম যে উইকেন্ডে লুজার্ন আর জুরিখ ঘুরে দেখবো। যেই ভাবা, সেই কাজ।

৭ জুলাই, ২০১৮। গ্রীষ্মের সকাল। ঘুম থেকে উঠেই রওনা দিলাম জেনেভা কর্নাভা স্টেশনের উদ্দেশ্যে। স্টেশনে পৌছে গেলাম ৬:৩০ এর দিকে। ৭:১৫ এর ট্রেন একদম যথাসময়েই ছাড়ল। এক মিনিটেরও কখনো হেরফের হয়না এই দেশে। অনলাইনে আগেই টিকেট কেটে রেখেছিলাম পুরো ট্রিপের। নজরকাড়া সব গ্রাম, ছোট ছোট ভ্যালি, চোখ ধাধানো সব পাহাড় আর মেঘ, এবং লেক জেনেভার মনোরম দৃশ্য উপভোগ করতে করতে কখন যে লুজার্ন স্টেশনে এসে পড়লাম তা টেরই পেলাম না। ১০:৪৫ এ লুজার্ন স্টেশন থেকে হার্গিসউইল স্টেশনের জন্য ট্রেন ধরলাম কারন আমরা ঠিক এখনই শহরে ঢুকবো না। তার আগে আমাদের প্ল্যান ছিল পিলাটাস পর্বতের চূড়া ফ্র্যাকমুন্টেগ ঘুরে আসা।

পিলাটাস পর্বত আল্পাইন পর্বতমালার পর্বত গুলির মধ্যে অন্যতম। বিভিন্ন উচ্চতায় এর অনেক গুলো চূড়া রয়েছে। ফ্র্যাকমুন্টেগ সমুদ্র পৃষ্ঠ হতে ১৪৩৬ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত এক অসাধারণ টুরিস্ট স্পট। এই চূড়ায় রয়েছে ইউরোপের সবচেয়ে দীর্ঘতম টোবোগান রান ফ্র্যাকিগডি। এটা মুলত একটা স্লাইড যা চূড়া থেকে শুরু হয়ে এর পাদদেশ পর্যন্ত সাপের মত একে বেকে নেমে আসে।

হার্গিসউইল স্টেশনে নামলাম ১১:১০ এ। নামতেই ঠাণ্ডা পাহাড়ি হাওয়া মুখে এসে লাগল। এখান থেকে যেতে হবে পাহাড়ের উপরে ক্যাবল কারের বেস স্টেশনে। বিপত্তি বাধল এই যে, আমরা বেস স্টেশনে পৌঁছানোর কোন উপায় দেখলাম না। যেতে হলে হেটে যেতে হবে। প্রায় ৩ কিলো সাপের মত আঁকাবাঁকা পথ। আমাদের উদ্ধার করতে এলো এক সুইস বৃদ্ধ ভদ্রলোক। মজার ব্যাপার যে তিনি ইংরেজী জানেন না আর আমরাও লুজার্ন এর ভাষা জার্মান তেমন একটা পারি না। ইশারা ইঙ্গিতে বোঝানোর পর তিনি সেচ্ছায় তার গাড়িতে করে আমাদের লিফট অফার করলো বেস স্টেশন পর্যন্ত। পথিমধ্যে গাড়ি থামিয়ে আমাদের ছবি তোলার সুযোগ করে দিল। আর যেতে যেতে তার ছবির মত সুন্দর বাসার এক ঝলকও আমরা দেখে নিলাম।

বেস স্টেশন থেকে কেবল কারের লাইনে দাড়াতেই সুইসদের আতিথেয়তার আরেকদফা পরিচয় পেলাম। আমরা টুরিস্ট জানা মাত্রই আমাদেরকে লাইনের একদম প্রথমে দাড় করিয়ে দিল লোকাল মানুষরা। প্রথমবারের মত কেবল কারে চড়ার অনুভূতিই আলাদা। একটু পরেই আমরা পাহাড়ের উপর এক রেস্টুরেন্টে নামলাম। রেস্টুরেন্টের নাম Alpgschwänd. রেস্টুরেন্ট থেকে ফ্র্যাকমুন্টেগ এক ঘন্টা পাহাড়ি হাটা পথ।

আমরা হাটা ধরলেও, বুঝে উঠতে পারি নি যে উপরের দিকে হাটাটা এতটা কষ্টসাধ্য হয়ে যাবে। আমি কখনো পাহাড়ে চড়ি নি তাই আমার কষ্টটা একটু বেশি হচ্ছিল। পিঠের ভারী ব্যাগ থাকাতে উপরের দিকে ওঠাটা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছিল। পিলাটাসের নৈসর্গিক সৌন্দর্যই আমাদের একমাত্র মনোবল দিচ্ছিল উপরে উঠার জন্য। আমরা এক ঘন্টা পর অনেকটা হাঁপাতে হাঁপাতে চূড়ায় পৌঁছলাম। খানিকটা জিরিয়ে নিয়েই টিকেট কেটে ফেললাম সেই বিখ্যাত রাইডের। স্লাইডে চড়ার অনুভুতিটা অসাধারণ।

সুইজারল্যান্ড খুব ব্যয়বহুল একটা দেশ, সবকিছুর অনেক দাম। তাই আমরা সাথে করে নিয়ে আসা স্যান্ডউইচ দিয়ে দুপুরের খাবার সারলাম। পাহাড়ের চূড়ায় বসে সালামি স্যান্ডউইচ খেতে খেতে পিলাটাসের শ্বেতশুভ্র মাথায় মেঘের খেলা দেখার মধ্যে যে স্বর্গীয় অনুভূতি পাওয়া যায়, তা কোনভাবেই বর্ণনায় বোঝানো সম্ভব না। ফ্র্যাকমুন্টেগ এ এছাড়াও আরো অনেক কিছু করার আছে। আমরা আপাতত লুজার্ন ফেরত যাব কিভাবে সেই চিন্তা করছিলাম। কারন, যেই পথে এসেছি সেই পথে আবার ফেরত যেতে হলে বেস স্টেশন থেকে হার্গিসউইল হেটে যেতে হবে। তাই ফ্র্যাকমুন্টেগ থেকে কেবল কার নিয়ে নামলাম ক্রিয়েন্স অঞ্চলে। ক্রিয়েন্স স্টেশন থেকে ট্রেন ধরে পৌঁছলাম লুজার্ন স্টেশনে। সময় তখন ৩:৩০। এখনো পুরো দিন পরে আছে আমাদের হাতে ঘুরে বেড়ানোর জন্য।

সুইজারল্যান্ডের সবচেয়ে আইকনিক শহর গুলোর মধ্যে অন্যতম হল লুজার্ন। বছরের সব সময়ই, বিশেষ করে গ্রীস্মে ভ্রমণপিপাসুদের আনাগোনা লেগেই থাকে এই শহরে। লেক লুজার্নের তীরে অবস্থিত পাহাড়ঘেরা মধ্যযুগের স্থাপত্যশৈলীর এক চোখ ধাধানো শহর এই লুজার্ন। শহরের মূল আকর্ষণ গুলো এক দিনেই ঘুরে দেখা সম্ভব।

লুজার্ন শহরের আকর্ষণ গুলোর মধ্যে অন্যতম হল চ্যাপেল ব্রিজ, লায়ন মন্যুমেন্ট, ওল্ডটাউন, মুসেগমওর, লেক লুজার্ন ইত্যাদি। শহরের প্রায় প্রতিটা রাস্তা ফুল দিয়ে সাজানো ছিল এবং একটু পরপর ছিল ফুলের ছোট ছোট বাগান। তাই এত হাটার পরেও এসব ক্লান্ত লাগেনি এই ঝলমলে শহর দেখে। আমরা সবার প্রথমে গেলাম চ্যাপেল ব্রিজে। ১৩৩৩ সালে বানানো রিউস নদীর উপর এই ব্রিজ লুজার্ন এর সবচেয়ে নান্দনিক আকর্ষণ। চ্যাপেল ব্রিজে ছবি তুলে ওল্ডটাউনের ভেতর দিয়ে সোজা চলে গেলাম টাওয়ার ওয়ালে, এখানে রয়েছে এক সারি পুরাতন ক্লক টাওয়ার। টাওয়ারের উপর থেকে লুজার্ন শহরটাকে আরো ভালোভাবে প্রাণভরে দেখে নেওয়ার সুযোগ আছে। টাওয়ার ওয়াল থেকে নেমে গেলাম লায়ন মন্যুমেন্টে। যুদ্ধে শহীদ হওয়া সুইস সৈন্যদের এই প্রতীককে দেখে গেলাম সেইন্ট লিওডেগার চার্চে, এবং সেখান থেকে লুজার্ন লেকের ধারে এক পার্কে। লেকের পানিতে পা ডুবিয়ে কতক্ষন আড্ডা দিলাম। তারপর ৮:১০ এর ট্রেন ধরে রওনা দিয়ে দিলাম জুরিখের উদ্দেশ্যে।

খরচঃ
জেনেভা থেকে লুজার্ন ট্রেনে – ৫২ ফ্র্যাঙ্ক
লুজার্ন থেকে হার্গিসউইল ট্রেনে – ৮ ফ্র্যাঙ্ক
হার্গিসউইল থেকে ক্যাবল কারে – ১২ ফ্র্যাঙ্ক
টোবোগান রাইড – ৮ ফ্র্যাঙ্ক
ফ্র্যাকমুন্টেগ থেকে ক্রিয়েন্স ক্যাবল কারে – ২০ ফ্র্যাঙ্ক

মোটঃ ৫২ + ৮ + ১২ + ৮ + ২০ = ১০০ ফ্র্যাঙ্ক বা ৮৪০০ টাকা।

এছাড়াও খাবারের খরচ আছে। আমরা খাবার সাথে করে নিয়ে এসেছিলাম বলে ঐটা যোগ করলাম না।

বিঃদ্রঃ-১ আমরা সুইস ট্রেনে চড়ার অভিজ্ঞতার জন্য ট্রেনে যাতায়াত করেছি। বাসে করে গেলে ট্রেনের ভাড়ার তিনভাগের এক ভাগ লাগবে। বাসে যাতায়াতের জন্য Flixbus সেরা। এইটা বাদ দিয়ে আমরা খরচ যথাসম্ভব কম করার চেষ্টা করেছি। উইকেন্ডে না গিয়ে উইকডে তে গেলে বাস ভাড়া/ট্রেন ভাড়া আরো কম পরবে। গ্রীষ্মকালে ইউরোপে দিন অনেক লম্বা হয়। সকাল হয় ৬ টায় আর সূর্য ডোবে ৯ টার দিকে। তাই পুরো দিনে অনেকটা সময় পাওয়া যায় কোন একটা অঞ্চল ঘুরে দেখার।

Source: Shaher Azad Himu <Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares