সিলেটের আরেক বিছানাকান্দিখ্যাত ভোলাগঞ্জের সাদা পাথর

ভোলাগঞ্জ সিলেট জেলার কোম্পানিগঞ্জে অবস্থিত। এর চারপাশে রয়েছে বিস্তীর্ণ পাহাড়। পাহারগুলোর বেশিরভাগই ভারতীয় অংশে পড়েছে। মূলত ভারতের মেঘালয় রাজ্যের পাহাড় এগুলো। সবুজ পাহাড়ে ও চমৎকার নীল পানির ধলাই নদী সাদা পাথরের আকর্ষণ বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণে।

এটিকে আরেক বিছানাকান্দি বলা হলেও আমার মতে এই স্থানটি বিছানাকান্দির চাইতে আরও অনেক বেশি সুন্দর। বিছানাকান্দির চাইতে এখানে যাওয়াও বেশ সহজ। তাছাড়া এর পাথরগুলি বিছানাকান্দির মত পিচ্ছিল নয়। সবুজের মায়াজাল, ঠাণ্ডা পানি, চমৎকার পরিবেশ, শ্বেতশুভ্র পাথর সবকিছু মিলিয়ে সাদা পাথর সত্যিকার অর্থেই হৃদয় হরণ করতে সক্ষম।

যেভাবে যাবেন – সিলেটের আম্বরখানা থেকে সিএনজি যায় এখানে সরাসরি। তবেঁ, এক্ষেত্রে সিন্ডিকেট হয়। চেষ্টা করবেন লোকাল সিএনজিতে যেতে। তাহলে ভাড়া পড়বে ১৪০ টাকা করে। আমাদের কিছু সিএনজি সারাদিন থাকবে এই লোভ দেখিয়ে ১৪০০ টাকার প্রস্তাব দিয়েছিল। এই ধরণের সিন্ডিকেট মুক্ত থাকার চেষ্টা করবেন। সিএনজি আপনাকে কোম্পানিগঞ্জের টুকের বাজার নামক একটি স্থানে নামাবে। সেখান থেকে ট্রলারে সরাসরি সাদা পাথর। ভাড়া পড়বে ৮০০ টাকা। সরবচ্চ ১০ জন উঠতে পারবেন এক ট্রলারে।

সবকিছু ঠিক তবে রাস্তাটা একটু ভাঙ্গা থাকার কারণে সিএনজিতে একটু কষ্ট হয়েছিল।

সতর্কতা – আমরা যেদিন গিয়েছিলাম সেদিন প্রচণ্ড বৃষ্টিপাত হয়েছিল। বোকামি করে আমার এক বন্ধু সাতরিয়ে একপাশ থেকে অন্যপাশে যেতে চেয়েছিল আমাদের অগোচরে। একদম মৃত্যুর মুখ থেকে আল্লাহ তাঁকে ফেরত নিয়ে এসেছে। দয়াকরে তাই কেউ এরকম ভুল করবেননা। লাইফ জ্যাকেট পরিধান করুন সাঁতরানোর সময়। আর সন্ধ্যার আগে ফেরত আসা ভাল কেননা, জায়গাটি সীমান্তবর্তী।

খাওয়া দাওয়া – কোম্পানিগঞ্জ ও সাদা পাথরের ওইখানে কিছু হোটেল আছে খাবার মত। তবেঁ, মান বেশি ভাল না।

আর দয়াকরে সবার প্রতি অনুরধ বেড়াতে গিয়ে কেউ স্থানটি নোংরা করবেন না। নইলে, কিছুদিন পর এটির অবস্থাও বিছানাকান্দির মত হবে। এই স্থানগুলি আমাদের দেশের জাতীয় সম্পদ, তাই আমাদেরকে খেয়াল রাখতে হবে এগুলোর রক্ষণাবেক্ষণে।

Source: Aneek Khan‎ < Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares