সেন্টমার্টিন দ্বীপের জনপ্রিয় দশটি রিসোর্ট/হোটেল

ভ্রমণের জন্য বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর স্থান সেন্টমার্টিন। পর্যটকদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে সবসময়ই থাকে ‘বঙ্গোপসাগরের টিপ’ বলে খ্যাত এই দ্বীপটি। অন্যান্যবারের মতো এবছরও অসংখ্য পর্যটক পাড়ি জমাবেন সেন্টমার্টিনে।
কিন্তু রাত্রিযাপনের জন্য এই দ্বীপে হোটেল বা রিসোর্ট ঠিক করতে গিয়ে সমস্যায় পড়ে যান অনেকেই। তাদের কথা বিবেচনা করে সেন্টমার্টিনের কয়েকটি হোটেল ও রিসোর্টের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি তুলে ধরা হলো।

০১) হোটেল ব্লু মেরিন
নিঃসন্দেহে সেন্টমার্টিনের সেরা হোটেল। জেটি থেকে সামান্য দূরত্বে অবস্থিত হোটেলটির অবকাঠামো খুবই চমৎকার। তিনতলা বিশিষ্ট এই হোটেলে ৩৪টি বিলাসবহুল রুম সহকারে নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্ট রয়েছে।
তবে বাজারের কাছে বলে এর আশেপাশে মানুষজনের সমাগম খুব বেশী। এছাড়া এই রুমগুলো থেকে সরাসরি বীচ দেখা যায় না। ফেইসবুকে ব্লু মেরিন হোটেলের রেটিং খুব ভালো ৪.২০/৫.০০ (১০০টি রিভিউ)। এর রুমভাড়া ২,৫০০-৩,৫০০ টাকা।
যোগাযোগঃ ০১৭১৩-৩৯৯০০০ (ঢাকা), ০১৭১৩-৩৯৯২৫০ (সেন্টমার্টিন)

০২) নীল দিগন্তে রিসোর্ট
সেন্টমার্টিন দ্বীপের দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত সুন্দর একটি রিসোর্ট। এর আয়তনও বেশ বড়ো। অস্তাচল, ছায়াবিথি, তরুছায়া ও নীপবন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত এর মোট রুমের সংখ্যা ৩৮টি। রেস্ট্যুরেন্টও রয়েছে এখানে। অবশ্য এই রিসোর্টের সমস্ত রুমই টিনশেড। রুমভাড়া ২,০০০-৪,৫০০ টাকা।
এর সমস্যা হলো, জেটি থেকে বেশ খানিকটা দূরে হওয়ায় ভ্যানভাড়া গুনতে হবে অন্তত দু’শ টাকা। এছাড়া রুম থেকে বীচ দেখারও কোন সুযোগ নেই। অন্যান্য সবকিছু ঠিকঠাক আছে। তবু ফেইসবুকে এর রিভিউ ভালো নয় কেন, বুঝলাম না। রেটিং হলো ৩.১০/৫.০০ (১৮টি রিভিউ)।
যোগাযোগঃ ০১৭৩০-০৫১০০৫, ০১৭৩০-০৫১০০৬, ০১৭৩০-০৫১০০৭

০৩) সী ভিউ রিসোর্ট এন্ড স্পোর্টস
এর অবস্থান নর্থ বীচের একেবারে লাগোয়া, জেটি থেকে সাত মিনিট হাটার দূরত্বে। নতুন ম্যানেজমেন্টের অধীনে এসে রিসোর্টের খোলনলচে পুরোপুরি বদলে গেছে। সম্প্রতি যারা এখানে থেকেছেন, সবাই এই দ্বিতল রিসোর্টটির প্রশংসা করেছেন। নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্টসহ এখানে ১৬টি রুম ও ০৪টি তাবু রয়েছে। সবচেয়ে বড়ো সুবিধা হলো, এর অধিকাংশ রুম থেকে সমুদ্র দেখা যায়। এছাড়া এখানে ফ্রি ওয়াইফাই (শিগগীর নাকি আসছে) ও ছোটখাট স্পোর্টসের সুবিধা রয়েছে।
সী ভিউ রিসোর্টের নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্টটির খাবারের মান ভালো হলেও এটি রিসোর্ট থেকে প্রায় ত্রিশ মিটার দূরে অবস্থিত। এর প্রতি রুমের ভাড়া ১,২০০-৩,০০০ টাকা। ফেইসবুকে এই রিসোর্টের রেটিং দেখলাম অসাধারন ৪.৯০/৫.০০ (৯৯০টি রিভিউ)। সেন্টমার্টিনের আর কোন রিসোর্টের এতো ভালো রেটিং এবং এতো বেশী সংখ্যক রিভিউ নেই।
যোগাযোগঃ ০১৮৪০-৪৭৭৭০৭ (ঢাকা), ০১৮৪০-৪৭৭৯৫৬ (সেন্টমার্টিন)

০৪) লাবিবা বিলাস রিসোর্ট
সুপ্রশস্ত এই দ্বিতল রিসোর্টে মোট ৪৩টি রুম, একটি রেস্ট্যুরেন্ট ও একটি ছোট্ট সেমিনার রুম রয়েছে। এর অবস্থান নর্থ বীচে। শিপঘাট থেকে যেতে একটু বেশী সময় লাগে, হাঁটাপথে ১৫-২০ মিনিট। এর রুমভাড়া ১,৬০০-৪,০০০ টাকা।
রিসোর্টের রুমগুলোর অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। তবে এই রিসোর্টে সবরকম আধুনিক সুযোগসুবিধার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের খেলাধূলার ব্যবস্থা রয়েছে। ফেইসবুকে এর রেটিং ৩.৮০/৫.০০ (৩৬টি রিভিউ)।
যোগাযোগঃ ০১৭৪৪-১৩৬১৪৫ (ঢাকা), ০১৮৩৪-২৬৭৯২২ (সেন্টমার্টিন)

০৫) হোটেল প্রাসাদ প্যারাডাইজ
এই দ্বিতল হোটেলটির অবস্থান ব্লু মেরিনের কিছুটা উত্তরে। এখানে মোট ১৬টি কক্ষ রয়েছে। হোটেলের সাথে রেস্ট্যুরেন্টও আছে। বীচ থেকে একটু দূরে বলে অল্প কয়েকটি রুম থেকে সমুদ্রের খানিকটা দেখা যায়। প্রাসাদ প্যারাডাইজের প্রতিটি রুমের ভাড়া ২,০০০-৪,০০০ টাকা।
ফেইসবুকে এর রেটিং বেশ ভালো ৪.২০/৫.০০ (৬০টি রিভিউ)।
যোগাযোগঃ ০১৫৫৬-৩৪৭৭১১

০৬) হোটেল সী ইন
সেন্টমার্টিন বাজারের মূল রাস্তা ধরে পাঁচ মিনিট হাটলেই এই হোটেলটির অবস্থান। এখানে মোট ২৬টি কক্ষ রয়েছে। অবকাঠামোর দিক থেকে এটি দূর্দান্ত সুন্দর। এর নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্ট নেই, তবে আশেপাশে বেশকিছু রেস্ট্যুরেন্ট রয়েছে। এর প্রতিটি রুমের ভাড়া ২,০০০-৩,৫০০ টাকা।
এই হোটেলের সমস্যা হলো, এটি বাজারের পাশে অবস্থিত। এখান থেকে সমুদ্র দেখার কোন উপায় নেই। এবং নির্জনতা উপভোগের সুযোগও সীমিত।
যোগাযোগঃ ০১৭২২-১০৯৬৭০, ০১৭৩৫-৫৮১২৫১, ০১৭৭৫-০১১২০৮

০৭) সীমানা পেরিয়ে রিসোর্ট
এই রিসোর্টের অবস্থান ওয়েস্ট বীচে, ভ্যানে করে যেতে হবে। এতে ১৪টি রুম ও একটি নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্ট আছে। বীচের পাশাপাশি বলে কয়েকটি রুম থেকে সমুদ্র দেখা যায়। এর ভাড়া ১,৫০০-২,৫০০ টাকা।
ফেইসবুকে এর রেটিং ৪.২০/৫.০০ (২০ টি রেটিং)।
যোগাযোগঃ ০১৯১১-১২১২৯২, ০১৮১৯-০১৮০২৭

০৮) কোরাল ভিউ রিসোর্ট
এই রিসোর্টটি নৌবাহিনী পরিচালনা করে। সেন্টমার্টিনের ইস্ট বীচে এর অবস্থান। জেটি থেকে বেশ খানিকটা দূরে বলে ভ্যান/বোট নিয়ে যেতে হবে। এর আয়তন অনেক বড়ো এবং রুমগুলো থেকে মোটামুটি সমুদ্র দেখা যায়। দ্বিতল এই রিসোর্টটির সামনে একটি সবুজ মাঠ রয়েছে। একে হেলিপ্যাড হিসেবে ব্যবহার করা হয় বলে শুনেছি। রিসোর্টের নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্টও রয়েছে। এর রুমপ্রতি ভাড়া ২,৫০০ টাকা থেকে শুরু। ৬,০০০ টাকার রুমও আছে।
এর রেটিং খুব ভালো ৪.২০/৫.০০ (২২৬টি রিভিউ)
যোগাযোগঃ ০১৯৮০-০০৪৭৭৭, ০১৯৮০-০০৪৭৭৮

০৯) প্রিন্স হ্যাভেন রিসোর্ট
প্রাসাদ প্যারাডাইজের আরো কিছুটা উত্তরে নর্থ বীচের পাশে এই রিসোর্টটির অবস্থান। এখান থেকে সমুদ্রের বেশ ভালো ভিউ পাওয়া যায়। রিসোর্টে ২৪টি কক্ষ আছে, নিজস্ব রেস্ট্যুরেন্টও আছে। কক্ষগুলোর ভাড়া ২,০০০-৪,০০০ টাকা।
যোগাযোগঃ ০১৮৩৩-৩৬০৩৩৩

১০) সী প্রবাল রিসোর্ট
নর্থ বীচের এই রিসোর্টটি সী ভিউ রিসোর্ট এন্ড স্পোর্টস থেকে সামান্য দূরে অবস্থিত। এখানে মোট ১৬টি রুম আছে। একটি রেস্ট্যুরেন্টও রয়েছে। এটি বীচের পাশে, তবে চারটি রুম ছাড়া অন্য রুমগুলো থেকে সমুদ্র দেখার উপায় নেই। এর প্রতিটি রুমের ভাড়া ১,৫০০-২,৫০০ টাকা।
যোগাযোগঃ ০১৮১৬-৪৬৭৪০৬, ০১৭৬১-২০০৬৮৯
এগুলো ছাড়াও সেন্টমার্টিন দ্বীপে রাত্রিযাপনের জন্য কোরাল ব্লু, ড্রিম নাইট, সায়রি, অবকাশ, স্যান্ড শোর, ব্লু লেগুন, সিটিবি ইত্যাদি রিসোর্ট পর্যটকদের কাছে বেশ জনপ্রিয়।

বিঃদ্রঃ সেন্টমার্টিনে হোটেল/রিসোর্ট বুকিং দেয়ার সময় বীচের কাছ থেকে অবস্থান, জেটি থেকে দূরত্ব, রেস্ট্যুরেন্ট, সিকিউরিটি ব্যবস্থা ইত্যাদি দেখে নেয়া দরকার। আর রুমভাড়াও ভালোভাবে দরদাম করা প্রয়োজন। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি থেকে জানুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত রুমভাড়া হবে খুবই বেশী, অন্যান্য সময় বেশ কম।

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com