স্প্লিট (ক্রোয়েশিয়া) ট্যুর

গেইম অফ থ্রোন্স যারা দেখেছেন সবাই ড্যানির বহুল ব্যবহৃত এই ডায়লগটির সাথে সুপরিচিত। গতবছর গিয়েছিলাম কিংস ল্যান্ডিং দেখতে আর এইবছর গেলাম ড্যানির মেরিন সিটিতে।

এবার ক্রোয়েশিয়া যাওয়ার মূল উদ্দেশ্য ছিল শুধুমাত্র মেরিন সিটি দেখা। মেরিনের শুটিং স্পট Split সেন্টার থেকে প্রায় ১৬ কি.মি দূরে Klis Fortress এ। প্ল্যান অনুযায়ী তাই Split এর সিটি সেন্টারের ভিতরে AirBnB বুক করে ফেললাম। যেহেতু পৌঁছাতে প্রায় বিকেল হয়ে গিয়েছিল তাই পরেরদিন সকালে Klis এ যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। রুমে ব্যাগ রেখে ফ্রেশ হয়ে বের হলাম Split সিটি দেখতে।

Split, এড্রিয়াটিক সমুদ্রের ডালমাশিয়ান উপকূলে অবস্থিত বিচ এবং দূর্গে ঘেরা ক্রোয়েশিয়ান শহর। বরাবরের মতন হাটতে হাটতে গেলাম শহরের অন্যতম আকর্ষণ ওল্ড সিটিতে। সারি সারি পাম গাছে সাজানো গোছানো পরিপাটি। চতুর্থ শতাব্দীতে রোমান সম্রাজ্যের সময় Diocletian’s Palace তথা এই সিটি স্থাপিত হয়। সাদা পাথরে তৈরি এই শহরে প্রায় ২০০ এর মত ভবন রয়েছে যাতে আছে চার্চ, ক্যাফে, বার, হোটেল এবং ঘরবাড়ি। হাজার বছরের পুরোনো ক্ষয়ে যাওয়া পথে আমাদের মত অসংখ্য ট্যুরিস্টদের আনাগোনা। সে এক অদ্ভুত অনুভূতি! এত বছরের পুরোনো ঐতিহ্য এতটুকু নষ্ট না করে অবিকলভাবে সংরক্ষন করা হয়েছে, ভাবতেই অবাক লাগে। অথচ আমাদের ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকা দিনদিন মাটি ফুঁড়ে ওঠা আধুনিক বিল্ডিং আর রাসায়নিক কেমিক্যালে পূর্ণ মৃত্যুকূপে পরিনত হচ্ছে! আমরা কেন পারিনা আমাদের ঐতিহ্য কে সংরক্ষন করতে!!?? যাইহোক, Split ওল্ড সিটির প্রতিটা আনাচ কানাচ অলিগলি ঘুরে দেখলাম। এই সৌন্দর্য ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়! হাটার ফাঁকে কিছু স্যুভিনিয়র ও কিনে ফেললাম। ওল্ড সিটির ঠিক অপজিটে Split বন্দর। ক্রোয়েশিয়ার অন্যান্য শহরের তুলনায় Split বেশ এক্সপেন্সিভ মনে হল আমাদের। তবে মাঝ সমুদ্রে গিয়ে এক কাপ কফি কিংবা এক গ্লাস ওয়াইন সহযোগে সূর্যাস্ত দেখতে চাইলে খুব অল্প টাকায় বোট ভাড়া করা যায়। আবহাওয়া আমাদের অনুকূলে না থাকায় বোট চলাচল বন্ধ ছিল বিধায় ইচ্ছা থাকা সত্বেও সুযোগ পাই নি।

পরের দিন AirBnB থেকে চেক আউট করে গেলাম Klis Fortress Aka City of Meereen দেখতে। Split এর বাস স্টপেজে ব্যাগ রাখার বেশ ভাল ব্যবস্থা আছে, সারাদিনের জন্য মাত্র ৩৫০ টাকা। সো ব্যাগ রেখে নিশ্চিন্তে গেলাম Klis দেখতে। বাস থেকে নামতেই ঝুম বৃষ্টি, কপাল খারাপ থাকতে যা হয় আর কি! ভাগ্যিস, পাশেই ছিল একটা কফিশপ। কফিশপে ঢুকে কফি খেতে খেতে অপেক্ষা করছিলাম কখন বৃষ্টি কমবে। বৃষ্টির তেজ একটু কমলে আকাবাঁকা পাহাড়ি রাস্তা বেয়ে ধীরে সুস্থে Klis Fortress এ রওনা দিলাম। প্রায় ৩০ মিনিটের মত হেটে পৌছালাম আমাদের কাঙ্খিত গন্ত্যব্যে। Game of Thrones এর শুটিং স্পট হওয়ার কারনে Duvrobnik এর মত Klis Fortress মোটামুটি বিখ্যাত হয়ে গেছে, টিকেট কেটে তাই ঢুকতে হল। বৃষ্টির কারনে ট্যুরিস্টদের আনাগোনা যদিও বেশ কম ছিল। Klis Fortress গিয়ে কল্পনার সাগরে টুপ করে ডুব দিলাম। সিজন সিক্সে এই জায়গায় আনসালিদ রা দাঁড়িয়েছিল, ড্যানি এইখানে দাড়িয়ে দাসদের মুক্ত করেছিল আর মাস্টারদের ক্রুশবিদ্ধ করেছিল, ভ্যারিস আর টিরিয়ন ল্যানিস্টার ড্যানির স্মল কাউন্সিলে যোগ দিয়েছিল এইখানে এসে। এইরকম অনেক দৃশ্যপটে মাথার ভিতরে রীতিমত স্লাইড শো শুরু হয়ে গিয়েছিল।।। Klis Fortress এ একটা রুমে গেইম অফ থ্রোন্সের যে সকল শুটিং এই জায়গায় করা হয়েছে সেগুলির ছবি সাজানো ছিল এবং একজন গাইড বিষয়গুলি ট্যুরিস্টদের কাছে বর্ণনা করছিল। Klis থেকে দূরে একটা স্টেডিয়াম দেখা যায়, স্পেশাল ইফেক্ট দিয়ে সেই স্টেডিয়ামটাকেও ইরেজ করা হয়েছিল,সেটা বলতেও সে ভোলেনি। সারাদিন Klis Fortress এ কাটিয়ে সিটিতে ফিরে এলাম। ততক্ষণে প্রায় বিকেল হয়ে এসেছিল, সিটি সেন্টারে এসে হালকা কিছু খেয়ে ব্যাগ তুলে নিয়ে বাসে চড়ে Split কে বিদায় জানিয়ে যাত্রা শুরু করলাম নতুন দেশের পানে…।।।

পরিশিষ্ট ঃ দয়া করে পরিবেশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। যেখানে সেখানে প্ল্যাস্টিক বোতল, পলিথিন ব্যাগ, টিস্যু ফেলবেন না। ধন্যবাদ

Source: Ayesha Siddiqua‎ <Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares