আন্দামান ভ্রমণে যেভাবে যাবেন ও খরচাবলি

আমার সব সময়ই পাহাড় পছন্দ আর ওর সমুদ্র। প্রথমে ইচ্ছে ছিল মেঘালয়া, তারপর তা হল ভুটান, আবার চিন্তা করলাম কাশ্মীর যাই…। অতঃপর হটাত দুজনে মিলে সিদ্ধান্ত নিলাম না সাগরেই যাই। অতঃপর বাজেটের কথা মাথায় রেখে প্লান করলাম আন্দামান আর কোলকাতা, এই দ্যু’টো জায়গা ঘুরব।

কোরবানির ঈদ মাথায় রেখে সব প্লান সাজালাম। যেহেতু ছুটি মাত্র ১০ দিন তাই ঢাকা থেকে ম্যাক্সিমাম সব ঠিক করে যাই…

৭অগাস্ট থেকে ১৬ অগাস্ট = ১০ দিন

৭ অগাস্ট রাত ঢাকা টু কোলকাতা ঃ

ঢাকা থেকে কোলকাতা বাস, ট্রেন, প্লেন এই তিনভাবে যাওয়া যায়। আমার সবসময় বাস পছন্দ। তাই সিদ্ধান্ত নিলাম শ্যামলীর ডিরেক্ট বাসে যাবো। এক মাস আগে টিকিট কেটে ফেলি ডিরেক্ট বাসে। এতে সময় লাগে অনেক। আমার অন্য একটা প্লান থাকায় আমি বাসে টিকিট নেই। যথারীতি রাত ১২টায় আমাদের যাত্রা শুরু হল। \

ডিরেক্ট বাসে ১৯০০/-

কাটা সার্ভিসে ১৭০০/-

৮-অগাস্ট দিনঃ কোলকাতা শহর

রাস্তায় কিছুটা জ্যাম পাওয়াতে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে পৌছাই সকাল ৮টায়। নিজেদের মত সব কাজ শেষ করে কোলকাতা যেতে দুপুর ২টা বেজে যায়। অতঃপর মির্জা গালিবের প্রিন্স রেস্টুরেন্টে দুপুরের খাবার খেয়ে টুকটাক শপিং শুরু। আমাদের প্লান ছিল পুরো একটা রাত কোলকাতা এয়ারপোর্টে থাকব তাই ভোর ৫ঃ৩০ এ ইন্ডিগো এয়ারে টিকিট কাটি।

সারাদিন পার্ক স্ট্রিট, উল্টোডাঙার বিগবাজার ঘুরে ফিরে রাত ৮ টায় এয়ারপোর্টে পৌছাই। বিধিবাম!!! রাত ১২টার আগে এয়ারপোর্টে ধুকতে দিবে না। ১০ঃ৩০ পর্যন্ত ওয়েটিং রুমে থাকি। শেষমেসে অনেক কষ্টে ভুলায় ভালায়ে ১০ঃ৩০ এ এয়ারপোর্টে ঢুকি। দুজনে ফ্রেস হয়ে শুরু করি এয়ারপোর্টের এমাথা থেকে ওমাথা ঘোরাঘুরি।

এদিনের খরচঃ ট্যাক্সি ৩০০। খাবারের খরচ শেষে দিব।

৯-অগাস্ট ঃ কোলকাতা টু পোর্ট ব্লেয়ার

আমার সাথে ঝামেলা হবে না এটা কোন কথা!!!! প্লেনের শিডইউল চেঞ্জ। ভোর রাত ৫ঃ৩০ থেকে ৭ঃ৩০ টা। অতঃপর সব শেষে দুজন উড়াল দিলাম ইন্ডিগো এয়ারে। সময় ২ ঘণ্টা।

৯ঃ২০ এ আমরা ল্যান্ড করি। ব্যাগেজ নিতে মাত্র ১০ মিনিট। যাবার আগে শুনেছিলাম RAP নিতে হয়। তবে নতুন নিয়ম হল শুধু পাকিস্তান, চিন আর আফগানিস্থানের ছাড়া কারো RAP প্রয়োজন হয় না।

এয়ারপোর্ট থেকে বের হতেই অটো আর কারের ড্রাইভার’রা ছেঁকে ধরল। হোটেল আগে থেকে ঠিক করা ছিল Hotel Andaman Shore. এক অটো ড্রাইভার বললেন ৮০ রূপী বাকি সবাই ১০০। তাই ৮০ তেই উঠলাম। মাত্র ৫মিনিটের মধ্যে হোটেলের সামনে নিজেদের আবিষ্কার করলাম। ফ্যামিলি হোটেল হিসেবে অনেক ভালো।

হোটেলে চেক ইন করে ফ্রেশ হয়ে এক্সপ্লোর শুরু। হোটেল থেকে অটো ড্রাইভার ঠিক করে নিলাম। দুপুরের খাবার খেলাম JC রেস্টুরেন্টে। খুবই ভাল।

এরপরে এক এক করে

Cellular Jail, Corbyn’s Cove Beach, Merina Park, Sea Museum ঘুরে Cellular Jail এ লাইট এন্ড সাউন্ড শো দেখে আবার সেই JC রেস্টুরেন্টে রাতের খাবার খেয়ে রুমে। .

অটো খরচ = 600 রুপি

Cellular Jail = 100 রুপি/person

Cellular Jail light & sound Show = 150 রুপি/ person

ঘুরতে যেয়ে আমাদের পরিবেশের প্রতি যত্নশীল হওয়া উচিত। আমাদের এমন কিছু করা উচিত নয় যার জন্য পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়। অব্যাবহৃত এবং অপ্রয়োজনীয় জিনিস নির্দিষ্ট স্থানে ফেলা উচিত।

Source: Anup Kumar Mojumder‎ <Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares