প্রায় ৬০০ বছরের বৃদ্ধ দ্বীপ: কুতুবদিয়া

#কেন যাবেন:
এইখানে কক্সবাজারের মত বড় বড় ঢেউ, সেন্টমার্টিনের মত নীল পানি কিচ্ছু নাই, তবুও এইখানে সমুদ্র দেখা আমার জীবনের সেরা অভিঙ্গতা গুলোর একটা।

এইখানের সব থেকে যে ব্যাপারটা ভাল্লাগসে ঐটা হইলো এই জায়গায় সাগড় পাড়ে ভিড় চোখে পড়ে নাই, রাত দুইটায় সমুদ্র দেখতে গিয়ে কক্সবাজারের মত ফ্ল্যাশলাইটের আলো দেখার চান্স নাই। আর মানুষগুলোর বেশির ভাগ সহজ সরল প্রকৃতির মনেহইসে,তাদের মধ্যে অতিথি সেবার মনোভাব আছে। কক্সবাজার সেন্টমার্টিনের লোকজনের মত পুরোপুরি ব্যবসায়ী মনোভাব তৈরি হয়নাই এখনো। আমরা যে দুইদিন ছিলাম আমরা ছাড়া আর কোন ট্যুরিস্ট গ্রুপ চোখে পড়ে নাই, এলাকার লোকজনও সাগর পাড়ে খুব প্রয়োজন ছাড়া যায় বলে মনেহয়না। কিছুক্ষণের জন্য নিজেদের সাগর পাড়টার মালিক টাইপস কিছু মনেহয়। আমাদের মত ভাগ্যবান হইলে তিনটা পিচ্চি খেলার সাথী সহ একটা ফুটবল পাইলে ঈদ মোবারক।

#কিভাবে যাবেন(চট্টগ্রাম থেকে):

সবচেয়ে সহজ, ঝামেলামুক্ত, স্বল্প খরচে যাওয়ার উপায় হইলো ফিরিঙ্গি বাজার ব্রিজঘাট থেকে সকাল ৭ টায়(গরমে ৬:৩০ সম্ভবত) ছেড়ে যাওয়া বোট। ১০০ টাকা আর সাড়ে তিনঘন্টায় বিনা ঝাঁকুনিতে অনেকটা মন্ত্রমুগ্ধ অবস্থাতেই পৌঁছে যাবেন কুতুবদিয়া। বোট ধরতে চাইলে ৭ টার আগে পৌঁছানোই বেটার। ছোট নৌকায় করে বড় বোটে উঠতে হয় আর নৌকার উপরে বসার জায়গাও মনমত পাওয়া যায় একটু আগে গেলে। নৌকার উপরে শেষ একঘন্টার রোদে কষ্ট হইসে আমাদের, ছাতা বা ক্যাপ সাথে থাকলে ভালোহয়। পুরো রাস্তা নৌকায় না গিয়ে দরবার ঘাট নেমে সিএনজি(মাহেন্দ্র গাড়ি বলে মেবি) দিয়ে বড়ঘোপ বাজার চলে যাইতে পারেন(ভাড়া- লোকাল ৪০ করে একজন), অনেক সময় বাঁচবে শুনে আমরা নেমে পড়ছি ঐখানে।

বাইরোডে যাইতে চাইলে নতুন ব্রিজ থেকে এস আলম বাস আছে মগনামা ঘাট পর্যন্ত, অথবা ব্রিজের ঐপাড় মইজ্যারটেক থেকে লোকাল সিএনজি ১৮০ টাকা একজন। মগনামা ঘাট থেকে কুতুবদিয়া চ্যানেল নৌকা বা স্পিডবোটে( ভাড়া ৩০ আর ৮০ সম্ভবত) পার হয়ে বড়ঘোপ জেটি ঘাট(প্রথম ছবিটা)। জেটি ঘাট থেকে রিক্সায় বড়ঘোপ বাজার(ভাড়া ৩০ টাকা এক রিক্সা)।

#থাকা খাওয়া:
সমুদ্রে খুব কাছাকাছি মানসস্মত হোটেল টাইপসের থাকার জায়গা সম্ভবত একটাই, সমুদ্র বিলাস। শুক্রবার ছাড়া তেমন ভীড় হয়না শুনলাম, তবুও কেউ গেলে একটু যোগাযোগ করে যাইয়েন(০১৭২২০৮৬৮৪৭)।
কুতুবদিয়া এসে খুব ভালো খাওয়া দাওয়া আসা কইরেন না, সামান্য হতাশ হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তবে খারাপ না, একটা মোটামুটি ভালো খাবার হোটেলে যেমন হয় আরকি।
সমুদ্র বিলাসের কাছাকাছি হোটেল নিউ মদিনা আর ক্যাফে ডি আলমের নাম শুনে গেসিলাম, ঐখানে গিয়ে নূর হোটেল নামে ছোট অথচ খাবার ঐগুলার চেয়ে বেটার একটা হোটেল পাইসি।

বন্ধুরা বললো এইখানের পান নাকি বেশি ভাল, মহেশখালি থেকে আনে। হোটেলের নিচের দোকান থেকে টেস্ট করে দেখতে পারেন ।

#যা যা দেখতে পারেন:
আমাদের মত হোটেলে ব্যাগ রেখে কাপড় পাল্টে সমুদ্রে
গিয়ে গোসল করতে পারেন। বিকালে চলে যাইতে পারেন বায়ুবিদ্যুৎ কেন্দ্র( ডান পাশের ছবি দুইটা ঐখানে তোলা)। বড়ঘোপ বাজার থেকে ১০ টাকা লোকাল সিএনজি ভাড়া আর রিজার্ভ ১০০,লোকাল গেলে বলে উইঠেন। বায়ু বিদ্যুকেন্দ্রের সাগড় পাড়ে কাটানো বিকাল জীবনের সেরা বিকালগুলোর একটা হবে সম্ভবত। সূর্যাস্তের পর ফিরে এসে রাতের খাওয়া দাওয়ার পর আবার সমুদ্রে যেতে পারেন, ঐদিকটা নিরাপদ।

পরদিন সকালের নাস্তার পর ৪০০ টাকা দিয়ে আসা যাওয়া আর ১ -১:৩০ ঘন্টা ঘোরার কথা বলে একটা মাহেন্দ্র রিজার্ভ করে বাতিঘর গিয়ে বাতিঘর দেখে সামান্য হতাশ হয়ে বামে তাকিয়ে জীবনে দেখা সবচেয়ে সুন্দর বিচ গুলোর একটা দেখি। ছোট ছোট ঝাউ গাছের ছাড়া ছাড়া বনের মত( ৩ নম্বর ছবি) আছে, এরপর সাগরপাড়। ঐখানে ঝাউগাছের ছায়ায় বসে আর উঠতে ইচ্ছা করতেছিল না কারো।

এরপর ব্যগ নিয়ে বের হয়ে কুতুবদিয়ার বিখ্যাত মাজার দেখে বাইরোডে ব্যাক করতে পারেন, মানে বড়ঘোপ জেটি-মগনামা ঘাট(পেকুয়া)-চট্টগ্রাম। আর যারা লবণের খামার দেখেন নাই, সিএন জি বা রিক্সাওয়ালাকে বললে রাস্তায় থামিয়ে দেখাবে।

নৌকায় ব্যাক করার অপশনও আছে, তবে দিনে একটাই নৌকা ছাড়ে কুতুবদিয়া থেকে চট্টগ্রামের দিকে, আর তা সকাল নয়টায়।

বি.দ্র. – ঐখানে কারেন্ট নাই, জেনারেটর আর সৌরবিদ্যুৎ। পাওয়ার ব্যাংক না আনলে প্যারা খাবেন, লাইট ছাড়া কারেন্ট কম সময় থাকে।তাই গরমের চেয়ে শীত কালই সম্ভবত আদর্শ সময় এইখানে বেড়ানোর জন্য।

হ্যাপি ট্রাভেলিং! 🙂

POst Copied From:Nirmol Das‎>Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com