বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট পুলিশের কিছু সাধারণ প্রশ্ন উত্তর

প্রশ্নঃ–আপনাদের কোন হেল্পলাইন নাম্বার আছে? উত্তরঃ–জি আছে , কাভার ফটো তে দেওয়া আছে, ০১৭৬৯৬৯০৭৪০
প্রশ্নঃ–এই নাম্বারে না পেলে কি করব? উত্তরঃ–পেজ অ্যালবাম এ সব অফিসার এর নাম্বার দেওয়া আছে। আপনি যে স্পট এ আছেন ওখানের অফিসার কে ফোন দিন। আর Bangladesh police phonebook অ্যাপ টি google play store theke মোবাইলে ডাউনলোড করে রাখুন। আমাদের সবার নাম্বার পাবেন।

প্রশ্নঃ–অ্যাপ টি আইফোন এ আছে কি? উত্তরঃ–না নেই। আপনি আইফোন এ জরুরী নাম্বার গুলোর ছবি তুলে রাখুন

প্রশ্নঃ–আপনারা কোন কোন ট্যুরিস্ট স্পট এ আছেন? উত্তরঃ–নিচের লিঙ্ক এ যান বিস্তারিত দেওয়া আছে https://www.facebook.com/notes/tourist-police-bangladesh/tourist-spot-of-bangladesh-covered-by-tourist-police/1527196867540853

প্রশ্নঃ–এর বাইরে অন্য ট্যুরিস্ট স্পট এ আপনাদের কার্যক্রম শুরু হবে কবে? উত্তরঃ–জনবল পেলেই শুরু হবে। আমাদের পেজ এ আপডেট পাবেন।

প্রশ্নঃ–আপনারা আসলে কি করেন? মানে আপনাদের আসল কাজ কি? উত্তরঃ–ট্যুরিস্ট স্পট ও ট্যুরিস্ট দের নিরাপত্তা দেয়ায় আমাদের মুল উদ্দেস্য। তবে মাঝে মাঝে সামাজিক দায়িত্তবোধের অংশ হিসেবে ট্যুরিস্ট স্পট পরিষ্কার করা , মাদক বিরোধী র‍্যালি করা, সচেতনতা মূলক লিফলেট বিতরণ এইসব কাজ আমরা করে থাকি। আরও বিস্তারিত নিচের লিঙ্ক এ https://www.facebook.com/notes/tourist-police-bangladesh/tourist-police-bangladesh-achievements2015/1550658538528019

প্রশ্নঃ–আপনাদের সাথে সাধারন পুলিশের পার্থক্য কি? উত্তরঃ–আমরা বাংলাদেশ পুলিশের একটি বিশেষ ইউনিট।আমাদের যাত্রা শুরু ২০১২ সালে। আমাদের সব সদস্য বাংলাদেশ পুলিশ থেকে আসা। তবে ট্যুরিস্ট পুলিশে যোগদানের আগে তাদের বিশেষ ট্রেইনিং দেয়া হয়। আর এই ট্রেইনিং টি পর্যটন করপরেসন, ঢাকা ইউনিভার্সিটি হসপিটাল অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগ ও আমাদের অভিজ্ঞ্য অফিসার রা দিয়ে থাকেন।

প্রশ্নঃ–ট্যুরিস্ট পুলিশ এ লোক নিবে কবে? আমি কিভাবে জয়েন করব?
উত্তরঃ–ট্যুরিস্ট পুলিশে সরাসরি লোক নিয়োগ হয়না। আপনি আগে বাংলাদেশ পুলিশ এ জয়েন করে ট্যুরিস্ট পুলিশ এ পোস্টিং নিয়ে আস্তে পারেন। আর বাংলাদেশ পুলিশ এ জয়েন করতে হলে কি কি করতে হবে সেটা বাংলাদেশ পুলিশের ওয়েবসাইট এ পাবেন।আর আমাদের পেজ এ লোক নিয়োগের ব্যাপারে কোন রকম পোস্ট দেয়া হয়না।

প্রশ্নঃ–আপনাদের ফেসবুক পেজ টি কারা চালায়? উত্তরঃ–আমরাই মানে ট্যুরিস্ট পুলিশের বিভিন্ন্য জোনের অফিসাররা। হেড অফিসের অফিসার রা আছেন। সবচেয়ে বড় বেপার আমাদের ট্যুরিস্ট পুলিশের প্রধান ডিআইজি সোহরাব হোসেন স্যার নিজে এই পেজ টি তদারক করেন। এই পেজ এর মুল উদ্যোক্তা তিনি।

প্রশ্নঃ–ট্যুরিস্ট পুলিশের কাছে অভিযোগ করার পর যথাসম্ভাব দ্রুত সময়ে পুলিশের সাড়া না পেলে, পুলিশ দ্বায়িত্বে অবহেলা করলে এবং এর জন্য কোন ভ্রমণকারি ক্ষতির সম্মুখীন হলে উক্ত ভ্রমণকারী কি করতে পারে এবং কি প্রতিকার পেতে পারে?
উত্তরঃ–এই পেজ এ প্রমান সহ অভিযোগ করলে আমরা ব্যবস্থা নেব. এই পেজ এ আমাদের ডি এই জি স্যার নিজে তদারক করেন . সুতরাং বুঝতেই পারছেন কিরকম অ্যাকশন হবে

প্রশ্নঃ–ট্যুরিস্ট স্পট গুলোতে স্পেশালি কুয়াকাটা, কক্সবাজার, সেন্ট মার্টিনে ‘যৌন হয়রানির’ শিকার হয় নারীরা। অনেকেই নরম করে ‘ইভ টিজিং’ বলে থাকেন। এ ব্যাপারে আপনাদের কোন পদক্ষেপ আছে কি? উত্তরঃ–গত এক বছরে ৫০ জন ইভটিযার ধরে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে https://www.facebook.com/TouristPolice.BD/posts/1596546927272513

প্রশ্নঃ–কক্সবাজারে স্থানীয় লোকজন থেকে আরম্ভ করে টুরিস্ট পর্যন্ত সবাই যত্রতত্র ময়লা ফেলে। অথচ যেখানে সেখানে ময়লা ফেলা একটি ফৌজদারি অপরাধ। শাস্তি হচ্ছে না দেখেই লোকজনেরও অভ্যাস বদলাচ্ছে না। এতে করে বিদেশি পর্যটক যেমন বিরক্ত হয়ে এখানে আসা ছেড়ে দিচ্ছে তেমনি বহির্বিশ্বে নোংরা হিসেবে আমাদের বদনাম হচ্ছে। এ ব্যাপারে আপনারা কি কোনো নিবৃত্তিমূলক পদক্ষেপ নিবেন? উত্তরঃ–পড়ে দেখুন https://www.facebook.com/TouristPolice.BD/posts/1601844953409377

প্রশ্নঃ–বেশিরভাগ পর্যটন স্পট গুলোতে ট্যুরিস্টদের কাছ থেকে যানবাহন এ অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়, পণ্যর গায়ে নির্ধারিত মুল্য দেয়া থাকলেও অতিরিক্ত মুল্য আদায় করে এ ব্যাপারে আপনারা কোন একশন নেন কিনা?
উত্তরঃ–অবশ্যই নেই। আমাদের কল দিবেন

প্রশ্নঃ–কক্সবাজারের হোটেল গুলোতে কোন কাপল উঠার পর যদি হোটেলের লোক দ্বারা হয়রানির স্বীকার হয় তবে কি কোন প্রতিকার পাওয়া যায় আপনাদের মাধ্যমে।
উত্তরঃ–অবশ্যই পাবেন। আমাদের কল দিবেন

প্রশ্নঃ–বাস এ চেকিং এর নামে হয়রানি করা হয়।এই ব্যাপারটা দেখা বেশি জরুরি।টুরিস্টরা এই ধরনের ব্যাপার গুলার সম্মুখীন হতে থাকলে কক্সবাজার বেঢ়াতে যাওয়ার আগ্রহ হারাবে?
উত্তরঃ–চেকিং করে chittagong metropolitan police and highway police.তাদেরকে অভিযোগ করুন। আমাদের কে লিখিত ভাবে অভিযোগ করলে আমরাও ব্যাবস্থা নিব।

প্রশ্নঃ–ট্যুরিস্ট স্পটে গেলে ট্যুরিস্ট ও অপরিচিত মনে হলে রিক্সা থেকে শুরু করে সমস্ত যানবাহন দ্বিগুন-তিনগুন ভাড়া রাখে। এটা রোধ করার কোন কার্যকরী ভুমিকা ট্যুরিস্ট পুলিশের আছে কিনা?
উত্তরঃ–যদি হয়রানি করে আমাদের জানাবেন . ব্যবস্থা নিব

প্রশ্নঃ–পন্য ক্রয়ে প্যাকেট গায়ের মূল্য থেকে বেশি আদায় করে।আমি মনি করি হকারদের একটা সিন্ডিকেট এখানে কাজ করে।এখানে আপনাদের কি উদ্দেক আছে।
উত্তরঃ–এটা দেখবে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। আমাদের কে জানালে আমরাও ব্যাবস্থা নিব।

প্রশ্নঃ–হোটেলে উঠার পর পছন্দ না হলে বা অন্য কারনে আমরা হোটেল ছেরে দিতে চাইলে হোটেল ম্যানেজমেন্ট অগ্রিম টাকা ফেরত দিতে চায় না। এই ক্ষেত্রে টুরিস্ট পুলিশের ভূমিকা কি হবে?
Hotel management হয়রানি করলে আমরা ব্যবস্থা নিব

প্রশ্নঃ–মহেশখালি থেকে কুতুবদিয়া, সোনাদিয়া যাবার বিস্তারিত প্ল্যান জানাবেন কি?
উত্তরঃ–ভ্রমন বিসয়ক কোন গ্রুপে প্রশ্নটি করুন।

প্রশ্নঃ–ফেসবুক ফ্যান পেজের সাথে সাথে ট্যুরিস্ট পুলিশ বাংলাদেশের একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট থাকবে। যেখানে ট্যুরিস্ট পুলিশের সমস্ত তথ্যাদির পাশাপাশি বাংলাদেশের জেলা ভিত্তিক প্রতিটা পর্যটন স্পটের পরিচিতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য, যাতায়াত, এবং ছবি থাকবে। ট্যুরিস্ট পুলিশ এ ধরনের কোন কাজ করতে পারে কিনা?
উত্তরঃ–ধীরে ধীরে হবে

প্রশ্নঃ–নানা কোম্পানি ট্যুর প্লান করে, সেই সব কোম্পানি থেকে মাঝে মাঝে অনেকে প্রতারিত হয়। ট্যুরিষ্ট পুলিশ কেন এমন ট্যুর প্লান করে না তাদের তত্ত্বাবধানে.? বা তাদের এমন কোনো প্লান আছে নাকি.?
উত্তরঃ–প্লান নেই . তবে কোন কোম্পানি প্রতারণা করলে আমাদের জানাবেন

প্রশ্নঃ–কোরাল খুব কম দামে বিক্রি করা হচ্ছে পর্যটক দের কাছে।ক্রয় বিক্রয় নিষিদ্ধ হলেও প্রায় সবাই এইটা করছে।এইটা প্রতিরোধে কি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে/হয়েছে/হবে?
উত্তরঃ–এটা দেখার কাজ পরিবেশ অধিদপ্তরের। তবে আমরাও মাঝে মাঝে ব্যাবস্থা নিয়ে থাকি।

প্রশ্নঃ–আমার মন্তব্য হল আপনারা বিভিন্ন জায়গায় আপনাদের বিভিন্ন help line number দিয়ে থাকেন। এই নাম্বার গুলোকে একটা কন্ট্রোল রুম এর আওতায় আনা জায়া কি যেমন: ৬৬৬, ৯৯৯, ১১১, ১৯৯৯ ইত্যাদি। তাহলে আমাদের তথা জনসাধারনের সুবিধা হত।
উত্তরঃ–আমরা চেষ্টা করছি . হয়ে যাবে

প্রশ্নঃ– আপনারা এতো ভালো কেন? উত্তরঃ–কারণ আপনারা আমাদের সাথে আছেন

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com