ব্রাহ্মপুত্র নদ, ময়মনসিংহ ভ্রমণ

ব্রহ্মপুত্রের অর্থ হচ্ছে “ব্রহ্মার পুত্র। ছোট থেকে ব্রাহ্মপুত্রের পাড়ে বিএইউ তে বড় হওয়ার সুবাদে “নদী” কথাটা উঠলেই মাথায় চলে আসত ব্রাহ্মপুত্রের কথা। দেশের এবং বিদেশের অনেক নদ/নদী দেখার সৌভাগ্য হয়েছে, কিন্তু কোনটাই ব্রাহ্মপুত্রের মত মনের ভেতরে গেঁথে যেতে পারেনি। এক এক সময় এই নদীর এক এক রূপ। ভরা বর্ষায় উত্তাল আবার শীতে, শান্ত কুয়াশা ঢাকা, এদিকে সেদিকে পানকৌড়ির আনাগোনা। শহরের নদী(সাহেব পার্ক) এক রকম বিএইউ এর নদী সম্পূর্ণ অন্য রকম। ৪ টা ছবি দিয়ে এই নদীর রূপ দেখান অসম্ভব প্রায় । এই নদীতে কখন সূর্যাস্ত দেখেছি সোনালি রঙের, গাড় কমলা, বেগুনি, হলুদ রঙের , কখন দেখেছি দুই পাড় কাশফুলে ঢাকা, কখন দেখেছি প্রায় সম্পূর্ণ নদী কচুরিপানায় ঢেকে গেছে,দেখেছি দুরে নদীর শেষ দেখাযায় যেখানে, ওইদিক থেকে আকাশ কালো করে বৃষ্টি আসছে,আস্তে আস্তে ঝাপসা হয়ে আসছে সব, কাছে না আশা পর্যন্ত দেখতে থাকা , কাছে আসার পর ভিজতে ভিজতে দৌড়ে পালান, আরও হাজার রকম যা কোথায় প্রকাশ করার নয়।

ডে টুর হোক বা সাপ্তাহিক ছুটি, ঘুরে আসতে পারেন ময়মনসিংহ থেকে। শহরে সারিন্দা , ধানসিঁড়ি রেস্টুরেন্টে আছে ভালো মানের বাংলা খাবার।ঢাকা থেকে মাত্র ৩ ঘণ্টা দুরে। জঙ্গল এর ভেতর দিয়ে চলে গেছে সুন্দর রাস্তা । এ ছাড়াও আছে খুব সুন্দর একটা রাজবাড়ি, শশী লজ আরও অনেক পুরনো স্থাপত্য এবং বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, আছে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সংগ্রহশালা , সাহেব পার্ক , বিপিন পার্ক । শুধু নদীর পাড়ে আর নৌকায় ঘুরেই সারাদিন কাটিয়ে দেয়া যায়।নদীর অপর পাড়ে আছে চা,পুরি-সিঙ্গারার এর দোকান, এ পাড়ে আছে ফুচকা, চটপটি,চা আর খুব মজার একটা বার্গার এর কার্ট।চাইলে নদীর পাড়ে অথবা বোটানিক্যাল গার্ডেনে বনভোজন করতে পারবেন। বর্ষায় নদীর ওই পাড়ে ছোট একটা নালা দিয়ে গ্রাম দেখতে দেখতে ভেতরের একটা বিলে যাওয়া যায়। যারা রাতে থাকতে চান ,নদীর কাছে থাকতে চাইলে আছে সিলভার ক্যাসেল হোটেল। আর বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমান/প্রাক্তন কেও পরিচিত থাকলে থাকতে পারবেন সেখান কার গেস্ট হউসে। চাইলে বিএইউ নদীর অপর পারে ক্যাম্পিং করতে পারেন। সম্পূর্ণ নিরাপদ, আর মানুষও অনেক ভালো।
এই সময় গেলে একটু পর পর নদীতে অনেক শুশুক/শিশু ভেসে উঠতে দেখবে । না, মানুষ এর বাচ্চা শিশু না, নদীর ডলফিন। আর ভাগ্য ভালো থাকলে সদ্য ধরা নদীর তাজা বোয়াল, রুই অথবা ছোটো মাছে কিনে আনতে পারবেন। চাইলে নিজেরাও ছিপ দিয়ে মাছ ধরতে পারেবেন সেখানে। হেটে আসতে পারবেন আম বাগানে, লম্বা একটা রাস্তা দুইপাশে শুধু আম গাছ সেখানে।

বিএইউ এর সৌন্দর্য কোন ভালো মানের রিসোর্ট থেকে কম নয়, বরং বেশি। নিজস্ব গাড়ি নিয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ঢুকতে চাইলে আগে থেকে অনুমুতি নিয়ে যেতে হবে।
মহাখালী বাস স্ট্যান্ড থেকে ১০ মিনিট পর পর ময়মনসিংহের বাস ছাড়ে। ভাড়া ২২০ টাকা। এছাড়া ট্রেনে করেও যেতে পারেন ময়মনসিংহ। বাজেট টুর এর জন্য ৬০০-৮০০ টাকায় একদিন ঘুরে আসা সম্ভব।
***যেখানে সেখানে ময়লা না ফেলে নিদ্রিস্ট স্থানে ময়লা ফেলুন ।***

Source: Rafaat Pronoy <Travelers of Bangladesh (ToB)

Share:

Leave a Comment

Shares