ভুটান – সবুজ আর পাহাড়ী সৌন্দর্য্যের মায়াজাল (ভ্রমণ গল্প ও গাইডলাইন)

ভুটান – সবুজ আর পাহাড়ী সৌন্দর্য্যের মায়াজাল (ভ্রমণ গল্প ও গাইডলাইন)

ভুটান ,মনে হয় সবুজ পাহাড়ী সৌন্দর্য্যে একটা দেশ নিজেকে সাজিয়েছে ,পাহাড়ের প্রতিটি ভাজে ভাজে সবুজ সৌন্দর্য্য তার মাঝে ভুটানিদের আলাদা ধাঁচের বাড়িগুলো যেন সৌন্দর্য্যটাকে আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে 🙂

স্বপ্নযাত্রা গ্রুপ থেকে আমাদের টিম নিয়ে ঘুরে এসেছি ভুটানে সেই গল্পটাই এখানে বলবো 🙂

পাহাড়ের মাঝে অবস্হিত থিম্পু সিটি

প্রতিটি দেশ আসলে তার গঠন দিক থেকে ভিন্ন যখন আপনি বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রবেশ করবেন একটা ভিন্নতা দেখবেন আবার যখন ভারত থেকে ভুটানে প্রবেশ দেখবেন দেখবেন সম্পূর্ণ নতুন ভিন্নতা আমি যখন ভারত থেকে ভুটানে প্রবেশ করি তখন অবাক হয়ে যাই শুধুমাত্র একটা গেট সব বদলে দিলো । পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন নিয়ম কানুন সম্পন্ন ভিন্ন এক জগৎ যেন ভুটান । এক কথায় বাড়ির কাছেই যেন ইউরোপ 🙂

ভুটানে মুলত তিনটা শহর ট্যুরিস্টদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজধানী থিম্পু ,পুনাখা ও পারু । তিনটি শহর কাছাকাছি দুরত্বেই অবস্হিত 🙂 অনেকে থিম্পু ঘুরে এসেই বলে ভুটান দেখা শেষ অথচ মোটামুটি দেখতে হলেও আমি বলবো এই তিনটা শহর আপনার দেখা উচিত 🙂

ভুটানে আসলে কি দেখবেন ? এই প্রশ্নটা বেশ প্রাসঙ্গিক ,সত্যি বলতে পুরো ভুটানটাই সুন্দর সাজানো গোছানো ,নির্দিষ্ট করে কিছু দেখবেন এমন বলার চেয়ে পুরো ভুটানই দেখবেন এমন বলাই শ্রেয় 🙂

রাত সাড়ে আটটার বাসে বুড়িমারি বর্ডারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে গেলাম আমরা ,সকালে নেমে বুড়ির হোটেলে নাস্তা সেরে ইমিগ্রেশন শেষ করে ভারত প্রবেশ করে আমাদের সাথে থাকা ডলার ও টাকাগুলোকে রুপিতে কনভার্ট করে নিলাম , ভুটানে ভারতীয় রুপি চলে সেজন্য রুপি করে নেওয়াই উত্তম । রুপি করে আমাদের জন্য আগে থেকেই ঠিক করা টাটা সুমোতে উঠে পড়লাম গন্তব্যটা এবার ভুটানি বর্ডার জয়গাও /ফুন্টসোলিং এ ,আড়াই ঘন্টার মত সময় লাগলো পৌছে গেলাম ,ভারতীয় অংশ থেকে এক্সিট সিল নিয়ে এবার ভুটান ভিসা অফিস থেকে ভুটানের ভিসা দিয়ে দিলো আমাদের 🙂 একদম বিকেল হয়ে গিয়েছে যাক এবার সবাই নিশ্চিতভাবে সব শেষ করে ভুটান প্রবেশই করে ফেললাম সবার মাঝে একটা স্বস্তির ভাব 🙂 যাই হোক খাবার খেয়ে নিলাম পেটপুরে সবাই 🙂

আগে থেকে বুক করা ট্যুরিস্ট বাস ভুটান বর্ডারেই দাঁড়িয়ে ছিলো ,খেয়ে দেয়ে উঠে পড়লাম এবারের জার্নিটা প্রায় সাড়ে ৫ ঘন্টার, গন্তব্যটা ভুটানের রাজধানী থিম্পুতে ,থিম্পু ফুন্টসোলিং থেকে প্রায় ১৭০ কিলোমিটার দুরে । যাত্রা শুরু হয়ে গেলো আর সবার মাঝেই নতুন কিছু দেখার আগ্রহী চোখ দেখতে পেলাম নতুন দেশ নতুন কিছুই সব । ফুন্টসোলিং মুলত নীচু শহর আর থিম্পু উচু শহর সেজন্য যাত্রা শুরু করে আস্তে আস্তে পাহাড়ী আকা বাঁকা রাস্তাতে উঠতে থাকবেন ,যেহেতু থিম্পু উপরের দিকে অবস্হিত সেহেতু ঠান্ডা হাওয়ার আভাস রাস্তাতেই পাবেন 🙂 মাঝপথে বেশ কয়েকবার বিরতি নিয়ে চা কফি খেয়ে সবাই তরতাজা হয়ে নিলাম ,আর পাহাড়ী রাস্তায় সবার গলাতেই ক্লাসিক গানের ঝড় উঠলো বিশেষ করে প্রিয়া পু ,ওয়াবয়দা আর কিশোরের গানে কখন যে থিম্পু এসে পৌছে গেছি সেটা টেরই পেলাম না ।

থিম্পু প্রবেশ করেই বুঝলাম শহরটা খুব সাজানো গোছানো ,রাতের নিয়ন আলোতে মনে হলো মায়াবী কোন শহরে প্রবেশ করেছি , সবগুলো বিল্ডিং এর প্যাটার্ন এক ধরনের আর চারপাশ পাহাড়ী ঘেরা সাজানো গোছানো ।

থিম্পু বুদ্ধা পয়েন্টে আমাদের স্বপ্নযাত্রা টিম

থিম্পু প্রবেশ করতে করতে আমাদের রাত এগারোটা বেজে গেলো ,শহরে ঢুকেই আগে থেকে বুক করা হোটেলে উঠে পড়লাম ,এক্ষেত্রে একটা কথা বলে দেওয়া ভালো যাদের হোটেল আগে থেকে বুক করা নেই এরা বিপদে পড়তে পারেন সেক্ষেত্রে ওইদিন ফুন্টসোলিং থেকে পরদিন থিম্পুর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হতে পারেন অথবা গাড়ীর ড্রাইভারের সাথে যোগাযোগ করে হোটেল বুকিং করার চেষ্টা করতে পারেন বা আমাকে নক দিলেও একটা হোটেল রফাদফা করে দিতে পারবো ইনশাল্লাহ 🙂

ক্লান্ত ছিলাম বলে ঘুমটা বেশ হলো রাতে সকাল সাতটায় ঘুম ভেঙ্গে গেলো বাইরে তাকিয়ে দেখলাম চমৎকার সুন্দর সকাল ,হোটেলেই নাস্তা সেরে নয়টার মধ্যে সবাইকে নিয়ে ট্যুরিস্ট বাসে উঠে পড়লাম আজকের দিনটা থিম্পুর জন্য ,

থিম্পু পার্লামেন্ট এবং সিটির আরও একটা অংশ ।

থিম্পু ভুটানের রাজধানী ,গোছানো শহর এখানে সবাই নিয়ম কানুন মেনে চলে দেখতেই মন ভরে যায় , সকালে আমাদের ট্যুরিস্ট বাস এসে হাজির ,ট্যুরিস্ট বাসগুলো খুবই চমৎকার আরামদায়ক যাই হোক নাস্তা সেরে গাড়ীতে উঠে গেলাম প্রথমে চললাম বুদ্ধ দরদেনমা স্ট্যাচু বা বুদ্ধ পয়েন্টে ,বিশাল আকৃতির বুদ্ধের স্ট্যাচু রয়েছে সাথে চারপাশের পাহাড়ী পরিবেশ এই জায়গাটিকে থিম্পুর ওয়ান অফ দ্য বেস্ট টুরিস্ট স্পটে পরিণত করেছে ।

থিম্পু বুদ্ধা পয়েন্ট
এটা দেখে উপর থেকে ভিউ পয়েন্টে থেকে থিম্পু শহরটাকে দেখে নিলাম ,থিম্পু শহরের চারপাশেই উঁচু উঁচু পাহাড় যা থিম্পু শহরটাকে ভিন্ন একটা মাত্রা দিয়েছে যাই হোক গাড়ী আবারও ছুটে চললো কিংস মেমোরিয়াল চর্টেন, বুদ্ধ , সিমতোখা জং, তাকিন রিজার্ভ বা চিড়িয়াখানা ,ভুটানের পার্লামেন্ট ভবন রাজপ্রাসাদ সব দেখে বিকালে আবারও হোটেলে ফেরত এসে পড়লাম । সন্ধ্যায় সবাই মিলে থিম্পু শহরটা হেটে হেটে দেখলাম এখানকার মার্কেটগুলোতে সবকিছুর দাম একটু বেশিই মনে হলো । মার্কেটে ফ্রেশ আপেল পাবেন আমরা দুই কেজি কিনে সবাই মিলে আপেল খেলাম । যেকোন শহরেই ঘুরতে যাননা কেন শহরটাকে ভালো করে বুঝতে আপনার হেটে হেটে শহরটা একবার ভ্রমণ করা উচিত এতে ওই শহরের অনেক কিছুই বুঝতে পারবেন বা ধারণা পাবেন যা হয়তো গাড়ীতে ঘুরে পাবেন না 🙂

পরদিন পুনাখা যাবো ,পুনাখা যাবার জন্য থিম্পু অফিস থেকেই একটা পারমিট নিতে হয় । আমার ওখানকার লোকাল গাইড আগে থেকেই পারমিট নিয়ে রেখেছে সেজন্য সকালে উঠেই পুনাখার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলাম ,পুনাখা প্রাকৃতিক ভাবে অনেক সুন্দর শহর । যাবার পথেই পড়বে দোচালাপাস , এটি ভুমি থেকে ১০১৭১ ফুট উঁচু ,চারপাশে মেঘ ঢেকে থাকে অধিকাংশ সময় আর শীতকালে বরফ পাবেন এখানে 🙂 এখানেই আমরা নাস্তা সেরে নিলাম চমৎকার একটা রেষ্টুরেন্ট রয়েছে ,আপনারা সকালের নাস্তাটা এখানেই সারতে পারেন 🙂

দোচালা পাস শেষ করে রওয়ানা হলাম পুনাখা জং দেখতে ,পুনাখা জং হলো পুনাখার সরকারী প্রধান অফিস ,এটি বহু আগে নির্মিত একটি দুর্গ ,যা বর্তমানে অফিস হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে ,পুনাখা জং এর পাশ দিয়েই বয়ে গেছে পুচো রিভার 🙂 পুনাখা জং এর ভিতরে প্রবেশ করতে পারেন ইতিহাস ঐতিহ্য নিয়ে অনেক কিছুই জানতে পারবেন একজন গাইড আপনাকে পুরো জংটি ঘুরিয়ে দেখাবে 🙂

পুনাখা জং

পুনাখা জং দেখার পর কিন্তু সবাই একটু এক্সাইটেড হয়ে উঠলো কারণ আমরা এখন রাফটিং করতে যাবো এই্ পুচো নদীতেই 🙂 চলে গেলাম পুচো রিভারের রাফটিং পয়েন্টে ,রাফটিং বোটে সবাই উঠে পড়লাম ,সত্যি মুগ্ধ হওয়ার মতো একটা নদী আর নদীর চারপাশ ,রাফটিং বোটের স্রোতের মধ্যে দিয়ে যাওয়া ,সবার ভয়ে আনন্দের চিৎকার পুরো সময়টা ছিলো এডভেঞ্চার ভরপুর । যারা ভুটান আসবেন রাফটিং অবশ্যই করবেন 🙂

পুচো নদীতে রাফটিং এ স্বপ্নযাত্রার মেম্বাররা

এই পুচো নদীর উপর দিয়েই রয়েছে আরও একটা জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট সাসপেনশন ব্রিজ ,এটি ১৬০ মিটার লম্বা ঝুলন্ত একটি ব্রিজ ,চারপাশের প্রকৃতি আর এই ব্রিজের নির্মাণশৈলী এককথায় আপনাকে মুগ্ধ করবেই 🙂

যাই হোক সারাদিন শুধু মুগ্ধতার উপরেই ছিলাম …শেষ বিকালের আলো যখন পুনাখার পাহাড়গুলোকে ছুয়েগেলো মুগ্ধতা আরও বেড়ে গেলো । সন্ধ্যায় হোটেলে উঠে পড়লাম । হোটেলের খোলা ছাদ থেকে মুগ্ধতা আরও বেড়ে গেলো …রাত পর্যন্ত আড্ডা আর গান যেন সময়গুলোকে আরও রঙ্গিন আর স্মৃতিময় করে দিলো 🙂

সাসপেনশন ব্রীজ

সকালে উঠে আজ আমাদের গন্তব্য পারো ,পুনাখা থেকে পারু যেতে প্রায় আড়াই তিন ঘন্টার মতো সময় লাগে ,পারুতে প্রথম যে জিনিসটা দেখার জন্য গাড়ীর কাঁচটা একটু নামিয়ে দিয়ে উঁকি খুঁকি দিবেন সেটা হলো পারু চো রিভার ,পারু শহরের মাঝ দিয়েই এই নদীটি গিয়েছে ,পারুতে প্রবেশের পর একটা ব্যাপার লক্ষ্য করলাম এখানকার পাহাড়গুলোর ধাঁচটা একটু ভিন্ন ,ছোট ছোট গাছ আর ঘাসে ভরপুর খাড়া উচু উচু পাহাড়ের পাশ দিয়েই পাহাড়ি রাস্তা আর রাস্তার পাশ দিয়েই পারু চো নদী বয়ে গেছে ,স্বচ্ছ নীলাভ পানি আর পাহাড়ী সৌন্দর্য্যের টানে গাড়ীটা একটু দাঁড় করিয়ে কিছুটা সময় কাটিয়ে দেয়া যায় 🙂

পারু প্রবেশের রাস্তার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া পারু রিভার
পারুতে দুপুরের খাবার খেয়েই চলে গেলাম চেলালা পাস ,চেলালা পাস ১৩০৮৪ ফুট উচুতে অবস্হিত ,উপরে উঠতে উঠতে ঠান্ডার আভাস পাওয়া যাচ্ছিলো ,চেলালা পাস যখন গাড়ী পৌছালো ,সবাই বের হয়েই আবার এক দৌড়ে গাড়ীতে চলে আসলো ,কি ঘটনা ? কি ঘটনা ? আসলে গাড়ীতে থাকায় বুঝিনি বাইরে প্রচন্ড ঠান্ডা । সবাই শীতের কাপড় নিয়ে আবার বের হলো । এই চেলালা পাসে জানুয়ারী ফ্রেবুয়ারীতে স্নোফল পাওয়া যায় ,বের হয়েই বুঝলাম এখানে স্নোফল না হলে আর কোথায় হবে বাতাস আর ঠান্ডা মেঘ আমাদের একদম কাবু করে দিচ্ছিলো কিন্তু সবার উৎসাহ খুব দেখার মতো ছিলো ,সবাই চেলালা পাসের একদম উপরে উঠার জন্য দৌড়াচ্ছিলো যাতে ঠান্ডা কম লাগে 🙂 ঠান্ডায় কাবু হলেও সবাই্ খুব উপভোগ করছিলো তা বুঝাই যাচ্ছিলো 🙂 এখানে একটা মাত্র ছোট্র দোকান আছে যেখানে চা পাওয়া যায় ঠান্ডা বাতাসে আটসাট হয়ে গরম চা খাওয়াটা মন্দ ছিলোনা 🙂

চেলালা পাস শেষ করে হোটেলে চলে আসলাম ,এসে তো সবার চোখ এক জায়গায় স্হির সেটা হলো আমাদের রিসোর্টের ভিতরেই আপেল বাগান এবং টসটসে পাঁকা আপেল ভর্তি গাছ । আর পায় কে সবাই আপেল নিয়ে খাওয়া শুরু করলো …আপেল ফটোসেশন আপেল খাওয়া সেশন সব যেন একসাথে চলছিলো 🙂

রাতে পারু শহরে ঘুরোঘুরি হলো এসে আবার ঘুম কারণ কাল ট্রেকিং করে আমরা টাইগার নেস্ট উঠবো 🙂

নাস্তা সেরেই টাইগার নেস্টের দিকে ট্যুরিস্ট বাস করেই রওয়ানা হলাম ,একটা পয়েন্ট নিয়ে নামিয়ে দিলো এখান থেকে ট্রেক করেই উঠতে হবে টাইগার নেস্টে । টাইগার নেস্টের উচ্চতা ১০২৪০ ফুট ,কিন্তু পুরোটা ট্রেকিং করতে হয়না গাড়ী অনেক উপর পর্যন্ত যেতে পারে সেখান থেকে দুই আড়াই ঘন্টা হাটতে হয় তবে চাইলে ঘোড়াতে করেও অনেকটা পথ উঠতে পারবেন । ভুটানের সিগনেচার ট্যুরিস্ট স্পট হলো এই টাইগার নেস্ট ,যারাই ঘুরতে আসে তাদের বড় একটা অংশ টাইগার নেস্টে উঠে ,এর উপরেই রয়েছে পারু তাকসাইং মনেস্ট্রি ।

টাইগার নেস্ট এর মনেস্টির সামনে আমরা 🙂 আপনি এই পর্যন্ত যেতে চাইলে কোন টিকেট লাগবেনা ।

সবার কিছুটা কষ্ট হলেও যখনই উপরে উঠতে পেরেছে সবার মাঝেই বিজয়ী ভাব চলে এসেছে ,তাকসাইং মনেস্ট্রিতে প্রবেশ করতে চাইলে ৫০০ রুপি দিতে হবে আর ছাত্রদের জন্য ২৫০ রুপি । মনেস্ট্রিতে প্রবেশ না করলে টিকেট কাটার কোন প্রয়োজন নেই 🙂

টাইগার নেস্ট শেষ করে নীচে চলে আসলাম এখানে বেশ কিছু দোকান পাট রয়েছে ভুটানে যদিও সব কিছুর দাম বেশি এখানে মনে হলো অন্য জায়গার অর্ধেক ,যদিও কিছু কেনাকাটার প্লান ছিলোনা কিন্তু এখানকার দাম কম দেখে বাসার সবার জন্যই কিছু না কিছু কিনে নিলাম ,আমি যে এত ঘুরতে বের হই এটা ঘুষ হিসেবে নেই আরকি ;p যেন কিছু না বলতে পারে :p

বিকালের মধ্যে হোটেলে ফিরে এসে সবার ফ্রি টাইম সবাই নিজেদের শপিং এর জন্য বের হয়ে গেলো ফিরে আসলো ব্যাগ ভর্তি শপিং নিয়ে কারণ আগামীকাল আমরা বাংলাদেশে চলে আসবো 🙂

পরদিন খুব ভোরে উঠেই বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলাম কারণ পারো থেকে ছয় ঘন্টা লেগে যায় বর্ডারে পৌছাতে মানে ফ্রুটসুলিং ,এখানে পৌছে আবার বাংলাদেশ বর্ডারে আসতে আড়াই ঘন্টা । মোটামুটি বিকাল সাড়ে তিনটার মধ্যেই বুড়িমারী পৌছে গেলাম ।

এসে যা শুনলাম মোটামুটি বিশাল চিন্তার বিষয় ,যমুনা সেতুর মেরামতের জন্য রাস্তায় ২৫ ঘন্টার জ্যাম কোন বাসই ঢাকা থেকে ফিরতে পারছেনা যা রওয়ানা হয়েছে সেগুলোও ঢাকা পৌছাতে পারেনি পুরো বুড়িমারি বাস কাউন্টার ফাঁকা কোন গাড়ী নেই ,যাত্রীরা এসে সবাই কাউন্টারে বসে আছে । আমাদের আগে থেকে বুক করা গাড়ী এখনো ঢাকা থেকেই রওয়ানা হতে পারেনি জ্যামের জন্য 🙁 কি করার কি করার ,পরে সবার সাথে কথা বলে বড় হাইস গাড়ী রিজার্ভ করে আসলাম রংপুর শহরে । এটা যেহেতু বড় শহর চিন্তাই ছিলো যে একটা না একটা ব্যবস্হা হবেই । অনেক দৌড়ঝাঁপ করে আল্লাহর রহমতে বাসের টিকেট ও পেয়ে গেলাম 🙂 যাক একটা ব্যবস্হাতো হলো ,আমাদের ড্রাইভারও ছিলো চালু খুব ,সে কোথায় কোথায় গ্রাম গন্জের রাস্তা দিয়ে আমাদের সকাল আটটায় ঢাকা নিয়েআসলো অথচ অন্যান্য গাড়ী ১৫/২০ ঘন্টায়ও ঢাকা পৌছাতে পারছিলোনা 🙂 সবাই সুন্দরভাবে অসম্ভব সুন্দর কিছু স্মৃতি নিয়ে দেশে ফিরে আসতে পেরেছি 🙂

সবাইকে সুন্দরভাবে ঢাকা পৌছাতে পেরে নিজের ভিতরেও একটা স্বস্তি কাজ করলো 🙂

পুরো ট্রিপের ছবিগুলো দেখতে পারেন এই লিংক থেকে

কি ভুটানে যেতে খুব ইচ্ছা করছে তাইনা ? বাকী গাইডলাইনগুলোও দিয়ে দিচ্ছি তাহলে

ভিসা কিভাবে করবো : ?

ভুটানে যাবার জন্য আগে থেকে ভিসার প্রয়োজন হয়না বর্ডারেই পাসপোর্টে ইন্সট্যান্স ভিসা দিয়ে দেয়
ভুটানে আপনি বাংলাদেশ থেকে দুইভাবে যেতে পারেন বিমানে এবং ইন্ডিয়ান ট্রানজিট ভিসা নিয়ে । ভুটানের একটিই মাত্র আন্তজার্তিক বিমানবন্দর যা পারো সিটিতে অবস্হিত । ঢাকা থেকে ভুটান রিটার্ন টিকেট ২০-২২ হাজার টাকার মধ্যে পাবেন । বিমানে গেলে আর ইন্ডিয়ান ট্রানজিট ভিসার প্র্রয়োজন নেই 🙂 পারু বিমানবন্দরেই ভিসা দিয়ে দিবে ।

আর বাই রোডে গেলে ভারতের ট্রানজিট ভিসা নিতে হবে ট্রানজিট ভিসা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য এই পোস্টে পাবেন 🙂 ট্রানজিট ভিসা ছাড়া ট্যুরিস্ট ভিসায় ভুটান যাওয়া যায়না 🙂

বাই রোডে যারা যাবেন তারা বাংলাদেশের বুড়িমারি হয়ে ভারতে প্রবেশ করবেন তারপর বর্ডার থেকে ৬৫ কিমি দুরে জয়গাও হয়ে ভুটানের ফুন্টসোলিং দিয়ে প্রবেশ করবেন ,গেটের কাছেই ইমিগ্রেশন অফিসে সাথে সাথে পাসপোর্টে সিল মেরে ভুটানের ভিসা দিয়ে দিবে ,পাসপোর্টের ফটোকপি এবং এক কপি ছবি নিয়ে যাবেন ।

ভুটানের হোটেল ও খাওয়া দাওয়া :

ভুটানে আগে থেকে হোটেল বুকিং দিতে হয় ট্রানজিট ভিসা এবং ভুটানের ভিসা পেতেও হোটেল বুকিং এর পেপারস প্রয়োজন হয় । অনলাইনে বুকিং ডট কম সহ আরও অনেক সাইট আ্ছে যার মাধ্যমে বুকিং দিতে পারবেন এছাড়া আমাকেও নক দিতে পারেন বুকিং দিয়ে দিতে পারবো । হোটেলের ধরণ অনুযায়ী কাপল রুমগুলো ১ হাজার থেকে তিন /চার হাজার রুপির রুম পাবেন । এবার আসি খাবারের ব্যাপারে ভুটানের খাবার খুব একটা সুবিধার না এবং এক্সপেন্সিভ অনেক একবেলা খেতে দুই আড়াইশো রুপি নরমালী চলে যায় । সব হোটেলেই আগে থেকে অর্ডার দিতে হয় তারপর খাবার প্রস্তত করে দেয় ।

ঘুরোঘুরি কিভাবে করবো :

আমার প্লানটা ফলো করলেই মোটামুটি ভালোভাবে ভুটান দেখা হয়ে যাবে 🙂 ফ্রুটসুলিং থেকেই গাড়ী পাবেন তবে লোকাল গাড়ী খুব একটা পাওয়া যায়না । যদি তিন চারজনের দল হয় তবে মারুতি গাড়ীগুলো রিজার্ভ নিতে পারেন প্রতিদিন ২৩০০-২৮০০ রুপির মতো চার্জ করবে আপনাকে । আর সাত আটজনের জন্য টাটা সুমো গাড়ী প্রতিদিন ৩৫০০ -৩৮০০ রুপির মতো চার্জ করবে । একদম গাড়ী রিজার্ভ করে ঘুরলে ঘুরে মজা পাবেন এবং ঝামেলাও একদম কমে যাবে 🙂 আমরা ১৫জনের টিম ছিলাম আমরা ঘুরেছি ২২ সিটের ট্যুরিস্ট বাস দিয়ে একদম পুরো ভুটান আমাদের সাথে ই গাড়ী ছিলো বর্ডার থেকে নিয়েছি পুরো ভুটান ঘুরে আবার বর্ডারেই নামিয়ে দিয়েছে 🙂

আর কি কিছু জানার আছে ?

ভুটানে সব জায়গায়ই ভারতীয় রুপি চলে সো বর্ডার থেকে সব টাকা বা ডলার ভারতীয় রুপি করে নিবেন 🙂

ভুটানে অনেক টুরিস্ট স্পটে টিকেট লাগে যেমন পুনাখা জং এ তিনশো রুপি করে লাগে । এমন আরও কিছু স্পট রয়েছে ।
ভুটান ধুমপান মুক্ত দেশ ,কখনো ভুলেও বাইরে ধুমপান করবে না ধরা খেলে জরিমানা করবে ক্ষেত্রবিশেষ ভিসাও ক্যানসেল করে দেয় । খুব প্রয়োজন হলে হোটেল রুমে ধুমপান করবেন ।
সবাই দুই কপি করে পাসপোর্টের ফটোকপি ও দুই কপি ছবি সাথে রাখবেন অনেক সময় প্রয়োজন হয়
ভুটানে মোবাইল সিম এভেইলেভেল পাবেন দুই আড়াইশো রুপি নিবে দশ পনের মিনিটের মধ্যেই এ্যাকটিভ হয়ে যাবে জাস্ট পাসপোর্টের ফটোকপি দিলেই সবজায়গায় সিম পাওয়া যায় ,মোটামুটি সব জায়গায় থ্রিজিও পাবেন । ভুটানে প্রবেশ করেই ফ্রুটসুলিং এ সিম কিনতে পারবেন 🙂
শপিং এর জন্য ভুটান ভালো জায়গা নয় সবকিছুর দাম বেশি তবে টাইগার নেস্ট পয়েন্টে কম দামে অনেক কিছু পাবেন শপিং করলে ওখান থেকে করতে পারেন ।

Share:

Leave a Comment

Shares
error: Content is protected !! --vromonkari.com